• মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ১২ শ্রাবণ ১৪২৮

ঢালিউড

কদর কমছে বাণিজ্যিক সিনেমার

  • বিনোদন প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ০৯ ডিসেম্বর ২০২০

দেশীয় তথাকথিত বাণিজ্যিক ধারার চলচ্চিত্র নিয়ে ইতোমধ্যে কানাঘুষা শুরু হয়েছে। ২০১৭ ও ২০১৮ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের তালিকায় অ্যাকশন, নাচ-গানে সর্বস্ব সিনেমার প্রাধান্য থাকলেও ২০১৯ সালে জায়গা করে নিয়েছে তথাকথিত বিকল্প ধারার সিনেমাগুলো। অন্যদিকে কয়েক বছর ধরে বাণিজ্যিক ছবির বাইরে ভিন্ন ধারার ছবির গুরুত্ব বাড়ছে। গুণী নির্মাতা ও সময়ের আলোচিত তারকারাও এসব ছবিতে আগ্রহ প্রকাশ করছেন।

এ বিষয়ে অভিনেত্রী অরুণা বিশ্বাস বলেন, ‘ছবি ভিন্নধারার হয় না। সব ছবিই এক- আমার কাছে এটাই মনে হয়। তবে কে কীভাবে বানাবে সেটা তার ব্যাপার। এই ধারণা নিয়েই সারা পৃথিবীতে ছবি নির্মাণ হচ্ছে। আগের মতো ছবি এখন পাই না। তবে এখনো কিছু কিছু ছবি ভালো হচ্ছে। যে ছবিগুলো ভালো হয়েছে, যার অভিনয় জুরি বোর্ডের সদস্যদের ভালো লেগেছে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের জন্য সে ছবি, সে অভিনয়শিল্পী বিজয়ী হয়েছেন। এখনকার অনেক বাণিজ্যিক ছবির চেয়ে আর্টফিল্মগুলো ভিন্ন চিন্তায় নির্মিত হয়।’

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৯ সালের জুরি বোর্ডের সদস্য ও চিত্রনায়ক রিয়াজ বলেন, ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার একটি বড় পুরস্কার। এটা সবার ভাগ্যে হয় না। যোগ্যতার ভিত্তিতেই এই অর্জন হয়। এবারের যে প্রজ্ঞাপন হয়েছে সেটা অনেক ভালো হয়েছে। জুরি বোর্ডের সদস্য হিসেবে আমি বলব, সবচেয়ে ভালো কাজের মূল্যায়ন করা হয়েছে। কমার্শিয়াল কিংবা আর্টফিল্ম বলে কোনো বাচ-বিছার করা হয়নি এবং কমার্শিয়াল-আর্টফিল্ম বলতে কোনো ক্যাটাগরিও নেই। যেসব ছবিগুলো জমা পড়েছে সেখান থেকে যে ছবিটি সবচেয়ে ভালো হয়েছে সেটাই সেরা হয়েছে। একইভাবে যার অভিনয়, নির্মাণ, গল্প সব ক্যাটাগরিতে একইভাবে গুণগত মানের বিচার করেছি আমরা।’

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি পরিচালক মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, ‘খাপছাড়া গল্প, অযৌক্তিক অ্যাকশন, অভিনয়-সংলাপ, অপ্রয়োজনীয় নাচ-গান দর্শক চান না। দর্শক ভালো কিছু চান। ভিন্ন স্বাদ। তাই বাণিজ্যিক ছবির দর্শক কমছে। ভিন্নধারার চলচ্চিত্রে সবার আগ্রহ বাড়ছে। এসব ছবি বানাতে খরচও কম লাগে। কম বাজেটেই একটি সুন্দর আর্টফিল্ম বানানো সম্ভব। অন্যদিকে বাণিজ্যিক ছবি বানাতে প্রচুর টাকা লাগে। বাজেট ভালো না হলে একটি বাণিজ্যিক ছবি নির্মাণ করা যায় না। বেশি বাজেটে ছবি নির্মাণ কজন করতে পারে। সব মিলিয়ে আমাদের দেশে এখন ভিন্নধারার চলচ্চিত্র নির্মাণের গুরুত্ব বাড়ছে। অপরদিকে বাণিজ্যিক ছবি বাজার হারাচ্ছে। সেই হিসেবে এবার হয়তো জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের জন্য বাণিজ্যিক ছবি কম জমা পড়েছিল। যা জমা পড়েছে তা ভালো লাগেনি জুরি বোর্ডের।’

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads