• বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ১১ জৈষ্ঠ ১৪২৮

ভোটার শূন্য মির্জাপুর সরকারি এসকেপাইলট কেন্দ্র; ছবিটি রোববার সকালের

ছবি : বাংলাদেশের খবর

নির্বাচন

টাঙ্গাইল-৭ উপনির্বাচন

ভোটে আগ্রহ নেই ভোটারদের, এজেন্ট বের করে দেয়ার অভিযোগ

  • মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ১৬ জানুয়ারি ২০২২

বেলা আটটা থেকে টাঙ্গাইল-৭ (মির্জাপুর) আসনের ১২১টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ শুরু হয় ইভিএম’র মাধ্যমে। তবে কেন্দ্রগুলো পরিদর্শন করে দেখা যায় ভোটার উপস্থিতি একদম কম। ভোটারদের মধ্যে আগ্রহ ও নির্বাচনী উত্তাপ-উৎসাহ কোনোটিই লক্ষ্য করা যায়নি।

সকাল ১১ টা পর্যন্ত প্রাপ্ত তথ্যমতে মির্জাপুর পৌর সদরের ২৬ ও ২৭ নং ভোট কেন্দ্রে যথাক্রমে ১৬৬ ও ২০৬ টি ভোট গ্রহণ হয়েছে বলে জানিয়েছে সংশিষ্ট কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা প্রিসাইডিং অফিসার মো. শরিফুল হক আকন্দ ও মনজুর আলম। কেন্দ্র দুটিতে নারী-পুরুষসহ মোট ভোটার সংখ্যা ৪ হাজার ৭শত ১২ জন। অন্যান্য কেন্দ্র গুলোতেও ভোট গ্রহণের হার একই অবস্থা বলে জানা গেছে।

এদিকে ভোট পরিস্থিতি নিয়ে সাংবাদিকদের কাছে একাধিক অভিযোগের কথা জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির প্রার্থী জহিরুল ইসলাম জহির। তিনি বলেন, ১২১ টি ভোট কেন্দ্র এলাকা থেকে তাদের পোস্টার ছিড়ে ফেলা হয়েছে। এছাড়া ভোট কেন্দ্র থেকে তার এজেন্ট বের করে দেয়া ও কিছু কিছু কেন্দ্রে এজেন্ট ঢুকতেই দেয়া হয়নি এবং জোর করে নৌকায় ভোট দেয়ার জন্য নৌকা প্রার্থীর এজেন্টরা ভোটারদের চাপ সৃষ্টি করছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি। প্রাথমিক অবস্থায় মৌখিকভাবে অভিযোগগুলো রিটার্নিং কর্মকর্তাকে অবগত করেছেন বলেও উল্লেখ করেন।

তবে ভোট পরিস্থিতি নিয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী খান আহমেদ শুভ বলেন, সারা মির্জাপুরের মানুষ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে স্বতঃস্ফূর্তভাবে নৌকা প্রতীকে ভোট দিচ্ছেন। আমি বিজয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী।

টাঙ্গাইল জেলা সিনিয়র রিটার্নিং কর্মকর্তা এএইচএম কামরুল হাসান বলেন, ভোটার উপস্থিতি কম হলেও নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হচ্ছে। তবে ধারণা করা হচ্ছে বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটার উপস্থিতি বাড়তে পারে। অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে বলেন, কোনো প্রার্থী আমার কাছে কোনো প্রকারের অভিযোগ করেননি।

টাঙ্গাইল ৭ আসনে ভোট ভোটার সংখ্যা ৩ লক্ষ ৪০ হাজার ৩৭৯ জন। এদের মধ্যে নারী ভোটার সংখ্যা ১ লক্ষ ৭০ হাজার ৫০১ জন ও পুরুষ ভোটার সংখ্যা ১ লক্ষ ৬৯ হাজার ৮৭৮ জন। যাদের মধ্যে ৫ জন তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার রয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ১৬ নভেম্বর’২১ এই আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. একাব্বর হোসেনের ইন্তেকালের পর আসনটি শুন্য ঘোষিত হয়।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads