• মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ১২ শ্রাবণ ১৪২৮

জাতীয়

ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ধরন শনাক্তদের বাড়িতে লাল পতাকা

  • অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ৩১ মে ২০২১

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ, মৃত্যু ও ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট প্রতিরোধে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় ৭ দিনের কঠোর লকডাউনের সপ্তম দিন চলছে আজ।

আজ সোমবার (৩১ মে) লকডাউনের কারণে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার ৫ উপজেলার সকল অফিস-আদালত, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, দোকানপাট, বিপণী বিতান বন্ধ রয়েছে। এর আগে শুক্রবার (২৮ মে) জেলায় লকডাউন চলাকালেই ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ধরা পড়েছে ৭ জনের দেহে। জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে তাদের বাড়িতে বাড়িতে লাল পতাকা দিয়ে চিহ্নিত করা হয়েছে।

জেলা শহরের নিমতলা মোড়ের একটি বাড়ির সামনে গিয়ে দেখা যায়, দুটি লাল পতাকা ঝোলানো রয়েছে। এই বাড়ি ছাড়াও জেলার আরও ৬টি বাড়িতে এমন করে পতাকা দিয়ে কঠোরভাবে লকডাউনের আওতায় নিয়ে আনা হয়েছে।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. জাহিদ নজরুল চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, গত ২৪ ঘন্টায় ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং ২১৫ নমুনা পরীক্ষায় ৯৩ জনের দেহে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

এদিকে জেলায় এ পর্যন্ত মোট ১ হাজার ৮৩০ জনের দেহে ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। জেলায় ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ভাইরাস ধরা পড়েছে ৭ জনের দেহে। সর্তকতার জন্য প্রশাসনের পক্ষ তাদের বাড়িতে লাল পতাকা টাঙ্গানো হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ায় ৭ দিনের বিশেষ সর্বাত্মক কড়া লকডাউনের সপ্তম দিনে আজ সোমবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার ৫ উপজেলার সকল অফিস-আদালত, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, দোকানপাট, বিপণী বিতান বন্ধ রয়েছে। বন্ধ রয়েছে সকল গণ-পরিবহন ও রেল চলাচল।

তবে আম পরিবহনকারী ম্যাংগো স্পেশাল ট্রেন ও পণ্যবাহী ট্রাক চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। এছাড়া সোনা মসজিদ স্থলবন্দরে আমদানি-রপ্তানি স্বাভাবিক রয়েছে। তবে লকডাউনের নীতিমালা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাঁচাবাজার ও ওষুধের দোকানগুলো খোলা রয়েছে। লকডাউন কার্যকরে জেলা শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে এবং জেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নেতৃত্বে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তৎপর রয়েছে।

এছাড়া লকডাউনের নির্দেশনা অমান্য করার অপরাধে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে ৩৮টি মামলায় ২৩ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। জরুরী প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের হচ্ছে না।

শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাকিব-আল-রাব্বী বলেন, ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট প্রতিরোধে জেলা প্রশাসনের নির্দেশে শনাক্ত হওয়া ব্যক্তিদের বাড়ি খুঁজে খুঁজে লাল পতাকা টাঙানো হয়েছে। পতাকা দেয়ার পাশাপাশি কঠোর নজরদারিতে রাখা হচ্ছে এসব বাড়ি। আশেপাশের প্রতিবেশীদের সঙ্গে যাতে কোনোভাবে মিশতে না পারে সে ব্যাপারে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads