• শুক্রবার, ২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
‘হাওয়া’র বদল

সংগৃহীত ছবি

শোবিজ

‘হাওয়া’র বদল

  • রায়হান উল্লাহ
  • প্রকাশিত ০১ আগস্ট ২০২২

দেশের ২৩টি প্রেক্ষাগৃহে গত শুক্রবার মুক্তি পেয়েছে মেজবাউর রহমান সুমন পরিচালিত আলোচিত সিনেমা ‘হাওয়া’। প্রথম দিন মোট ৬৬টি প্রদর্শনী হয়েছে ছবিটির। সিনেমাটির ‘সাদা সাদা কালা কালা’ শিরোনামের গানটি ইতোমধ্যে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। গানটি লিখেছেন হাসিম মাহমুদ। মুক্তির দিন থেকে আগামী কয়েকদিন রাজধানীর প্রেক্ষাগৃহ ছাড়াও দেশের একাধিক প্রেক্ষাগৃহে অগ্রিম টিকিট বিক্রি শেষ। প্রথম দিন রাজধানীর একাধিক প্রেক্ষাগৃহ ঘুরে দেখা গেছে ছবিটি দেখতে দর্শকদের ব্যাপক আগ্রহ। বলা চলে অনেকটা সময় ধরে যারা হলবিমুখ হয়ে ছিলেন তারা হলে ফিরতে শুরু করেছেন। অনেকেই বলছেন বাংলা চলচ্চিত্রের হাওয়া বুঝি বদল হতে চলল। রাজধানীর মধুমিতা সিনেমা হলে কথা হয় তাহমিনা সালমা নামের একজন দর্শকের সঙ্গে। তিনি বলেন, হাওয়া দেখার মাধ্যমে অনেকদিন পর সিনেমা হলে আসা হলো। এভাবে প্রতিটি হলে পারিবারিক আবহ আসা উচিত। তেমন ছবিও নির্মাণ হওয়া উচিত। বাংলা চলচ্চিত্র যেন তার সুদিন ফিরে পায় সেদিকে খেয়াল রাখা উচিত সবার।

একই হলে কথা হয় রামপুরা বনশ্রী থেকে ছবিটি দেখতে আসা সাংবাদিক ঈশিতা জামানের সঙ্গে। তিনি পুত্র ইনান জামান মায়াজকে সঙ্গে নিয়ে আসেন ছবিটি দেখতে। ঈশিতা জামান বলেন, সবকটি চরিত্র অসম্ভব ভালোভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। গল্পটি যেমন ইউনিক, গল্পের মানুষগুলোর প্রেজেন্টেশন ছিল আরো বেশি ইউনিক। কেউ কারো থেকে কম যায় না! ভীষণ ভালো লেগেছে।

অবশ্য ইনান জামান মায়াজ একটু বিব্রত। এর কারণ ছবিটিতে বেশ কয়েকবার চরিত্রের সঠিক রূপ দিতে কিছু অশ্লীল শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে। ইনামের বিব্রত ও ক্ষিপ্ত মন্তব্য, ‘ওরা এতো পচা কথা বলে কেন। বটি দিয়ে মারামারি করে। অনেক দুষ্ট। নাথিং, সো বোরিং’।

তেজতুরী বাজার থেকে ঢাকার পান্থপথে বসুন্ধরা শপিং মলের স্টার সিনেপ্লেক্সে ছবিটি দেখতে যান কবির আহমেদ সুমন নামের একজন ব্যবসায়ী। তিনি বলেন, হাওয়া চমৎকার। ছবিটির প্রায় সবকিছুই ভালো লেগেছে। তবে মাঝে মাঝে ফিশিং ট্রলারটি সমুদ্রে স্থিরভাবে ছিল। সমুদ্রের কোনো সাড়া ছিল না। অথচ গল্পে ট্রলারটি সমুদ্রে উদ্দ্যেশ্যহীন ভাসছিল। এটি নির্মাণের ত্রুটি বলে আমি মনে করি।  

গত শুক্রবার দুপুরে স্টার সিনেপ্লেক্সে প্রথম প্রদর্শনীতে অংশ নেন চলচ্চিত্রটিতে মাঝি চরিত্রে অভিনয় করা চঞ্চল চৌধুরীসহ কলাকুশলীরা। প্রদর্শনী শেষে প্রতিক্রিয়ায় চঞ্চল চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, আমরা ভাবতেও পারিনি হাওয়া সিনেমা দিয়ে দর্শকদের এত কাছে যেতে পারব।

তিনি বলেন, দর্শকদের বাঁধভাঙা জোয়ার, হলে টিকিট পাওয়া যাচ্ছে না, প্রায় এক সপ্তাহের অগ্রিম টিকিট সোল্ড আউট হয়ে গেছে। এটা স্বপের মতো মনে হচ্ছে। এত দর্শক, তাদের যে উৎসাহ উদ্দীপনা, উচ্ছ্বলতা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। চলচ্চিত্রটির একমাত্র নারী চরিত্র গুলতি। যে চরিত্রে অভিনয় করেছেন নাজিফা তুষি। তিনি বলেন, মানুষের এত ভালোবাসা ও আগ্রহ, সত্যিই আমরা অভিভূত। আসলে দর্শকরাই আমাদের সিনেমাটি প্রমোশন করেছেন। আপনাদের এই অনুপ্রেরণা ভবিষ্যতে আরো ভালো কাজ করতে আমাদের উৎসাহ জোগাবে। তারকাবহুল এ সিনেমায় অভিনয় করেছেন চঞ্চল চৌধুরী, নাজিফা তুষি, শরিফুল রাজ, সুমন আনোয়ার, নাসির উদ্দিন খান, সোহেল মণ্ডল, রিজভী রিজু, মাহমুদ হাসান এবং বাবলু বোস।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads