• বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ১১ জৈষ্ঠ ১৪২৮

টেনিস

ভিসার আবেদন খারিজ, অস্ট্রেলিয়ান ওপেন খেলছেন না জকোভিচ

  • অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ১৬ জানুয়ারি ২০২২

নভেল করোনাভাইরাসের টিকা না নিয়ে কী বিপদই না ডেকে আনলেন টেনিসের এক নম্বর তারকা নোভাক জকোভিচ! কয়েকদিন ধরে চলতে থাকা জকোভিচ নাটকের শেষ হতে চলেছে। আর এ নাটকে হার মানতে হলো সার্বীয় তারকা জকোভিচকে। অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে খেলার জন্য দ্বিতীয় বারের মতো ভিসার আবেদন করে মামলায় হেরে গেলেন তিনি। ফলে, অস্ট্রেলিয়ান ওপেন না খেলেই দেশটি থেকে শূন্য হাতে ফিরতে হচ্ছে এ টেনিস তারকাকে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, জকোভিচ অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থান করার জন্য তাঁর শেষ মামলায় হেরে গেছেন। ফলে, তিনি অস্ট্রেলিয়া থেকে নির্বাসিত হতে চলেছেন।

আগামীকাল সোমবার জকোভিচের প্রথম ম্যাচ খেলতে কোর্টে নামার কথা ছিল। কিন্তু, মামলায় হেরে যাওয়ার কারণে রেকর্ড ২১তম গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ের আশাও শেষ হয়ে গেল সার্বিয়ান তারকার।

আজ রোববার জকোভিচের অস্ট্রেলিয়ার ভিসা মামলার শুনানি শেষ হয়। এর পর তা নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে আলোচনায় বসে ফেডেরাল কোর্টের প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের বেঞ্চ। এদিন দীর্ঘ সময় ধরে জকোভিচ ও অস্ট্রেলিয়া সরকারের আইনজীবীরা তাঁদের বক্তব্য পেশ করেন।

শুনানি শেষে তিন বিচারকের প্যানেল জানিয়ে দেয়, জোকোভিচ যে আবেদন করেছেন, তা অযৌক্তিক। অস্ট্রেলিয়ার সার্বিক কোভিড পরিস্থিতিতে সে আবেদন কোনো মতেই মেনে নেওয়া যায় না। তাই, তাঁর আবেদন খারিজ করে দেওয়া হয়।

কিছুদিন ধরে ক্রীড়া জগতের সবকিছু ছাপিয়ে আলোচনার কেন্দ্রে সার্বীয় টেনিস তারকা নোভাক জকোভিচ। আলোচনার সূত্রপাত ২০ বারের গ্র্যান্ড স্ল্যামজয়ী তারকার অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে খেলতে যাওয়া নিয়ে।

গত ৬ জানুয়ারি মেলবোর্নে আসার পর জকোভিচের ভিসা প্রথমবার প্রত্যাহার করা হয়েছিল। তখন তাঁর ভিসা বাতিল করে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষের হোটেলে আটকে রাখা হয়। অস্ট্রেলিয়ার পক্ষ থেকে জানানো হয়, দেশটিতে ভ্রমণের ক্ষেত্রে জকোভিচ শর্ত পূরণ করেননি। তাই তাঁর ভিসা বাতিল করা হয় এবং তাঁকে পুনরায় দেশে ফেরত পাঠানো হবে।

ঘটনাটি নিয়ে ঝড় ওঠে টেনিস বিশ্বে। ফেরত পাঠানো এড়াতে অস্ট্রেলিয়ার হাইকোর্টে আবেদন করেন জকোভিচ। তোপের মুখে পড়ে অস্ট্রেলিয়ার আদালত শেষপর্যন্ত গত সোমবার জকোভিচকে মুক্তি দেওয়ার আদেশ দেন। এর পরেই মেলবোর্নের টেনিস কোর্টে অনুশীলনে ফেরেন জকোভিচ। অনুশীলনে ফেরার পর এক বিৃবতিতে সার্বীয় তারকা দাবি করেন, অস্ট্রেলিয়ার ট্রাভেল ডিক্লারেশন ফরম পূরণের সময় ভুল বাক্সে টিকচিহ্ন করেছিলেন তাঁর এজেন্ট। ভিসা-সংক্রান্ত যাবতীয় গোলযোগ এজেন্টের ভুলের কারণে হয়েছে।

কিন্তু, গত শুক্রবার অস্ট্রেলিয়ার অভিবাসনমন্ত্রী অ্যালেক্স হকের সিদ্ধান্তে দ্বিতীয় বারের মতো বাতিল করা হয় জকোভিচের ভিসা। কোভিড টিকা না নেওয়ার কারণে অস্ট্রেলিয়ার সরকার জকোভিচের ভিসা দ্বিতীয় বারের মতো বাতিল করে।

ভিসা ফর্মে জকোভিচ অস্ট্রেলিয়া ভ্রমণের আগে ১৪ দিন কোথাও ভ্রমণ করেননি বলে তথ্য দিয়েছেন। অথচ তাঁর সাম্প্রতিক ভ্রমণ ইতিহাস বলছে, তিনি সার্বিয়ার বিভিন্ন জায়াগা ও স্পেনে গিয়েছিলেন। সার্বিয়াতে বিভিন্ন অনুষ্ঠানেও দেখা গিয়েছিল জকোভিচকে। যদিও এসব অভিযোগ অস্বীকার করেন জকোভিচ।

এ ছাড়া গত মাসে কোভিডে আক্রান্ত হন জকোভিচ। পরে কোভিডমুক্ত হয়েই কোর্টে খেলতে নেমে পড়েন৷ অস্ট্রেলিয়ান ওপেন খেলতে চলতি সপ্তাহে অস্ট্রেলিয়া যান৷ সবমিলিয়ে অস্ট্রেলিয়ায় থাকার অনুমতি মেলেনি তাঁর।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads