• শুক্রবার, ২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
কানাডার প্রথম সোনার হাসি ম্যাকনেইলে

সংগৃহীত ছবি

অ্যাথলেটিকস

কানাডার প্রথম সোনার হাসি ম্যাকনেইলে

  • স্পোর্টস ডেস্ক
  • প্রকাশিত ২৬ জুলাই ২০২১

সাঁতার শেষ করেই টাইমিং বোর্ডে দিলেন দৃষ্টি। বিস্ময়ের ঘোর যেন কাটতেই চায় না। টোকিও অলিম্পিকে মেয়েদের ১০০ মিটার বাটারফ্লাইয়ের সোনা জিতে অস্ফুটেই মার্গারেট ম্যাকনেইল বলে উঠলেন-‘ও মাই গড।’ টোকিও অ্যাকুয়াটিস সেন্টারে  সোমবার জমজমাট লড়াইয়ে ৫৫ দশমিক ৫৯ সেকেন্ড সময় নিয়ে সেরা হন ম্যাকনেইল। চলতি আসরে এই প্রথম সোনার পদকের স্বাদ পেল কানাডাও।

চীনের ঝ্যাং উফেই (৫৫ দশমকি ৬৪ সেকেন্ড) পেয়েছেন রুপা। অস্ট্রেলিয়ার এমা ম্যাককিওন (৫৫ দশমিক ৭২ সেকেন্ড) পেয়েছেন ব্রোঞ্জ।

এ ইভেন্টে অবশ্য বিশ্বরেকর্ড ও অলিম্পিকের রেকর্ড অক্ষতই থাকল। ২০১৬ সালের রিও দে জেনইরো অলিম্পিকে ৫৫ দশমিক ৪৮ সেকেন্ড সময় নিয়ে দুটি রেকর্ড গড়েছিলেন সুইডেনের সারা সুস্ট্রোম।

এদিকে, অ্যাডাম পিটি তার বাহুতে আঁকিয়েছিলেন সিংহের ট্যাটু। আর বলেছিলেন, ব্রিটিশ সিংহের মতোই তিনি। সুইমিংপুলে ঝড় তুলে তাই করে দেখালেন অ্যাডাম পিটি। ধরে রাখলেন অলিম্পিকে ১০০ মিটার ব্রেস্টস্ট্রোকের মুকুট। গ্রেট ব্রিটেনকে উপহার দিলেন এবারের আসরে প্রথম সোনা।

টোকিও অ্যাকুয়াটিস সেন্টারে সোমবার ১০০ মিটার ব্রেস্টস্ট্রোকে ৫৭ দশমিক ৩৭ সেকেন্ড সময় নিয়ে সেরা হয়েছেন পিটি। ২০১৬ সালে রিও দে জেনেইরো অলিম্পিকে এই ইভেন্টে বাজিমাত করেছিলেন এই তারকা সাঁতারু। প্রথম ব্রিটিশ সাঁতারু হিসেবে অলিম্পিকের কোনো ইভেন্টের শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখার অনন্য কৃতিত্বও গড়লেন তিনি। 

এই ইভেন্টের বিশ্বরেকর্ড ও অলিম্পিকের রেকর্ডের মালিক পিটি। ২০১৯ সালে গুয়াঞ্জুতে ৫৬ দশমিক ৮৮ সেকেন্ডে সাঁতার শেষ করে গড়েছিলেন বিশ্বরেকর্ড আর রিও দে জেনেইরোতে অলিম্পিকের রেকর্ড গড়েছিলেন ৫৭ দশমিক ১৩ সেকেন্ড টাইমিং নিয়ে।

এই ইভেন্টে নেদারল্যান্ডসের আর্নো কামিনগা ৫৮ সেকেন্ড সময় নিয়ে রুপা ও ইতালির নিকোলো মার্তিনেংঘি ৫৮ দশমিক ৩৩ সেকেন্ডে সাঁতার শেষ করে পেয়েছেন ব্রোঞ্জ।

রিও দে জেনেইরোতে সোনার পদকে চুমু এঁকেছিলেন অলিম্পিকের রেকর্ড গড়ে। কিন্তু টোকিও অলিম্পিকসে পারলেন না মুকুট ধরে রাখতে। মেয়েদের ৪০০ মিটার ফ্রিস্টাইলে রুপা পেয়েছেন কেটি লেডেকি।

টোকিও অ্যাকুয়াটিক সেন্টারে গতকাল ৩ মিনিট ৫৬ দশমিক ৬৯ সেকেন্ড সময় নিয়ে এ ইভেন্টে সেরা হয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার আরিয়ার্ন টিটমাস। ৩ মিনিট ৫৭ দশমিক ৩৬ সেকেন্ড টাইমিং নিয়ে রুপা পেয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের লেডেকি।

চীনের সাঁতারু বিংজি লি (৪ মিনিট ১ দশমিক ৮ সেকেন্ড) সময় নিয়ে পেয়েছেন ব্রোঞ্জ। অবশ্য এই টাইমিং নিয়েই এশিয়ান রেকর্ড গড়েছেন তিনি।

অলিম্পিকের মুকুট খোয়ালেও এই ইভেন্টের বিশ্বরেকর্ড ও অলিম্পিকের রেকর্ড দুটিই থাকল লেডেকির দখলে। ২০১৬ সালের রিওর আসরে ৩ মিনিট ৫৬ দশমিক ৪৬ সেকেন্ড সময় নিয়ে রেকর্ড দুটি গড়েছিলেন তিনি।

ব্রাজিলের আসরটি লেডেকি রাঙিয়েছিলেন দারুণভাবে। সেবার ব্যক্তিগত ও দলীয় মিলিটে চার ইভেন্টে সোনা জিতেছিলেন তিনি।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads