• রবিবার, ২৬ জুন ২০২২, ১২ আষাঢ় ১৪২৯
ঈদযাত্রায় চলবে ১২টি বিশেষ ট্রেন

সংগৃহীত ছবি

যোগাযোগ

ঈদযাত্রায় চলবে ১২টি বিশেষ ট্রেন

  • রতন বালো
  • প্রকাশিত ২৩ জুন ২০২২

আসন্ন পবিত্র ঈদ-উল-আজহা উপলক্ষে ঘরমুখো মানুষের জন্য ১২টি বিশেষ ট্রেন পরিচালনার উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। ঈদের আগে চারদিন ও ঈদের পরে তিনদিন চলবে এসব ট্রেন। এ ছাড়া যাত্রীর চাপ সামাল দিতে ২১৩টি কোচ বাড়তি যোগ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এসব কোচ পাহাড়তলী ওয়ার্কসপ হতে ৬৭টি (এর মধ্যে পাহারতলী ওয়ার্কশপ থেকে ৪০টি এমজি ও সৈয়দপুর ওয়ার্কশপ হতে ৬টি এমজি ও ২১ টি বিজি) যাত্রীবাহী কোচ সার্ভিসের অন্তর্ভুক্ত করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এছাড়া ঈদ উপলক্ষে অতিরিক্ত চাহিদা মেটানোর জন্য পূর্বাঞ্চল ১০৮টি ও পশ্চিমাঞ্চল হতে ১০৫টি লোকোমোটিভ যাত্রীবাহী ট্রেনে ব্যবহারের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

বাড়তি কোচ সংযোগ দেওয়ার ফলে প্রতিদিন ২ লাখ ৬০ হাজার থেকে ২ লাখ ৬৫ হাজার যাত্রী চলাচল করতে পারবে বলে রেলপথমন্ত্রী মো. নুরুল ইসলাম সুজন জানান। তিনি বলেন, এবার ঈদে কাউন্টার থেকে ৫০ ভাগ আর অনলাইনে ৫০ ভাগ টিকিট বিক্রি নিশ্চিত করা হবে। এর যেন ব্যত্যয় না ঘটে সেদিকে কঠোর নজরদারি রাখা হবে। তবে স্পেশাল ট্রেনের টিকিট কাউন্টার থেকে কিনতে হবে। এটা অনলাইনে পাওয়া যাবে না।

এদিকে, ঈদুল আজহা উপলক্ষে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হবে আগামী ১ জুলাই সকাল ৮টা থেকে। চলবে ৫ জুলাই পর্যন্ত। ফিরতি টিকিট বিক্রি শুরু হবে আগামী ৭ জুলাই থেকে। চলবে ১১ জুলাই পর্যন্ত। গতকাল বুধবার দুপুরে রেলভবনে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে রেল কর্তৃপক্ষ। টিকিট কালোবাজারিদের সম্পর্কে রেলপথমন্ত্রী বলেন, টিকিট কালোবাজারি গ্রহণযোগ্য নয়। কালোবাজারিদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্ত্রী জানান, আগামী ১ জুলাই ৫ জুলাই ঢাকা কমলাপুর স্টেশনে যাত্রীর চাপ কমানোর লক্ষ্যে ঢাকা মহানগরের ৬টি ও জয়দেবপুর রেলওয়ে স্টেশনে ১টিসহ মোট ৭টি কেন্দ্র থেকে টিকিট বিক্রি করা হবে। ঢাকা ( কমলাপুর) স্টেশন থেকে সমগ্র উত্তরাঞ্চলগামী আন্তঃনগর ও বীর মুক্তিযোদ্ধা স্পেশাল সার্ভিস ট্রেন, কমলাপুর শহরতলী প্ল্যাটফরম থেকে রাজশাহী ও খুলনাগামী সকল আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট, ঢাকা বিমানবন্দর স্টেশন থেকে চট্টগ্রাম ও নোয়াখালীগামী সকল আন্তঃনগর ট্রেনের, তেজগাঁও স্টেশন থেকে ময়মনসিংহ, জামালপুর, দেওয়ানগঞ্জগামী সকল আন্তঃনগর ট্রেন ও দেওয়ানগঞ্জ ঈদের স্পেশাল ট্রেনের, ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট থেকে মোহনগঞ্জগামী মোহনগঞ্জ ও হাওড় এক্সপ্রেস ট্রেনের, ফুলবাড়িয়া পুরাতন রেলওয়ে স্টেশন থেকে সিলেট ও কিশোরগঞ্জগামী সকল আন্তঃনগর ট্রেনের ও জয়দেবপুর স্টেশন থেকে বীর মুক্তিযোদ্ধা স্পেশাল ট্রেন পঞ্চগড়ের যাওয়ার টিকিট বিক্রি করা হবে।

তিনি বলেন, ১ জুলাই বিক্রি হবে ৫ জুলাইয়ের টিকিট। ২ জুলাইয়ের টিকিট বিক্রি হবে ৬ জুলাইয়ের টিকিট। ৩ জুলাইয়ের টিকিট বিক্রি হবে ৭ জুলাইয়ের টিকিট। ৪ জুলাইয়ের টিকিট বিক্রি হবে ৮ জুলাইয়ের টিকিট। ৫ জুলাইয়ের টিকিট বিক্রি হবে ৯ জুলাইয়ের টিকিট। ৭ জুলাই ফেরত আসার টিকিট বিক্রি হবে এবং ১১ জুলাই পর্যন্ত চলবে বলে মন্ত্রী জানান।

বর্ষায় দেশের সড়ক যোগাযোগব্যবস্থা খারাপ থাকায় ট্রেনের ওপর এবার বাড়তি চাপ পড়বে জানিয়ে রেলমন্ত্রী বলেন, চাপ সামলাতে রেলওয়ে সব প্রস্তুতি নিয়েছে। ঈদের সময় প্রতিদিন দেশে প্রায় ২ লাখ ৬৫ হাজার যাত্রী পরিবহন করবে রেলওয়ে। ২১৩টি কোচ বাড়তি যোগ করা হবে। এ ছাড়া ইঞ্জিনের সংখ্যাও বাড়ানো হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগের ওপর তো আমাদের হাত নেই। তারপরও আমাদের চেষ্টা আছে। সেখানে জনবল দেওয়া আছে। আশাকরি ঈদের আগে রেললাইনগুলো মেরামত করা যাবে। আমরা সবশেষ চেষ্টা করব।

রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, একজন ব্যক্তি একসঙ্গে সর্বোচ্চ ৪টি টিকিট সংগ্রহ করতে পারবে। এ ছাড়া বিক্রীত টিকিট ফেরত নেওয়া হবে না। ঢাকা স্টেশনে ২৩টি কাউন্টার খোলা রাখা হবে। এর মধ্যে প্রতিটি আন্তঃনগর ট্রেনে শুধুমাত্র মহিলা ও প্রতিবন্ধী যাত্রীদের জন্য একটি করে স্বতন্ত্র কোচ সংযোগ করা হবে। স্পেশাল ট্রেনের কোনো টিকিট অনলাইনে পাওয়া যাবে না। শুধুমাত্র স্টেশন কাউন্টার থেকে বিক্রি করা হবে।

জানা গেছে, টিকিট কালোবাজারী প্রতিরোধ করতে ঢাকা, ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট, বিমানবন্দর, জয়দেবপুর, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ, সিলেট, রাজশাহী, খুলনাসহ সব বড় বড় স্টেশনে জিআরপি, আরএনবি, বিজিবি ও স্থানীয় পুলিশ এবং র্যাবের সহযোগিতায় টিকিট কালোবাজারী প্রতিরোধে সার্বক্ষণিক প্রহরার ব্যবস্থা করা হবে। পাশাপাশি জেলা প্রশাসকদের সহায়তায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে।

এ ছাড়া চলন্ত ট্রেনে, স্টেশনে বা রেললাইনে নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড প্রতিরোধকল্পে আরএনবি, জিআরপি ও রেলওয়ে কর্মচারীদের কার্যক্রম আরো জোরদার করা হবে। এ ছাড়া র্যাব, বিজিবি, স্থানীয় পুলিশ ও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীর সক্রিয় সহযোগিতায় নাশকতাকারীদের কঠোরভাবে দমন করা হবে বলেও রেল কর্তৃপক্ষ জানায়।

সুষ্ঠু ও নিরাপদে ট্রেন চলাচলের সুবিধার্থে ট্রেন পরিচালনার সঙ্গে সম্পৃক্ত রেলওয়ে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের পবিত্র ঈদ-উল-আযহার ৬ দিন পূর্বে ৪ জুলাই থেকে ঈদের পূর্ব দিন পর্যন্ত আন্তঃনগর ট্রেনসমূহের অফ-ডে থাকবে না এবং ঈদ পরবর্তীতে যথারীতি অফ-ডে কার্যকর করা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মো. হুমায়ুন কবীর, রেলওয়ের মহাপরিচালক ধীরন্দ্র নাথ মজুমদার, অতিনিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) সরদার সাহাদাত আলীসহ পূর্ব ও পশ্চিমাঞ্চলের সংশি¬ষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে রেলপথমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন ট্রেনের টিকিট কাটার নতুন মোবাইল অ্যাপ উন্মোচন করেন। এই অ্যাপ তৈরি ও ব্যবস্থাপনার কাজ করছে বাংলাদেশ রেলওয়ের টিকিটিং পার্টনার সহজ-সিনেসিস-ভিনসেন জেভি। এখন থেকে রেল যাত্রীরা রেলওয়ের ই-টিকিট ওয়েবসাইটের পাশাপাশি ‘রেল সেবা’ অ্যাপ ব্যবহার করে ট্রেন টিকিট কাটাতে পারবেন। রেল সেবা অ্যাপটি বর্তমানে গুগল প্লে-তে পাওয়া যাচ্ছে বলে জানা গেছে।

টিকিট কাটার জন্য যাত্রীদের অ্যাপটি ডাউনলোড করে নিজের নাম, মোবাইল নম্বর, ইমেইল অ্যাড্রেস, জাতীয় পরিচয়পত্র/জন্ম নিবন্ধনসহ তথ্য দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। তবে কোনো যাত্রী যদি ইতোমধ্যে বাংলাদেশ রেলওয়ের ই-টিকিট ওয়েবসাইটে রেজিস্টার করে থাকেন তাহলে তাকে আর দ্বিতীয়বার রেজিস্ট্রেশন করতে হবে না। শুধু মাত্র মোবাইল নম্বর ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করলেই হবে বলে ‘সহজ-সিনেসিস-ভিনসেন জেভি’ সূত্র জানায়।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads