• রবিবার, ১৬ জানুয়ারি ২০২২, ২ মাঘ ১৪২৮
সুদের হার কমানোয় কমছে সঞ্চয়পত্র বিক্রি

সংগৃহীত ছবি

ব্যবসার খবর

ব্যাংক থেকে সরকারের ঋণ বেড়েছে

সুদের হার কমানোয় কমছে সঞ্চয়পত্র বিক্রি

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ০১ ডিসেম্বর ২০২১

ব্যাংক থেকে সরকারের ঋণ নেওয়ার পরিমাণ বাড়ছে। চলতি অর্থবছরের সাড়ে চার মাসে (১ জুলাই থেকে ১৫ নভেম্বর) ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে ১৪ হাজার ২০২ কোটি টাকা ঋণ নিয়েছে সরকার। ২০২০-২১ অর্থবছরের এই সাড়ে চার মাসে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে সরকার ঋণ নিয়েছিল ৪ হাজার ৩৩৪ কোটি টাকা। সে হিসাবে এবার একই সময়ে সরকারের ঋণ নেয়ার পরিমাণ তিনগুণের বেশি।

সুদের হার কমানোয় সঞ্চয়পত্র বিক্রি কমে গেছে। এ অবস্থায় সরকারকে বাধ্য হয়ে ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন অর্থনীতির গবেষক জায়েদ বখত। তবে এতে চিন্তার কিছু নেই জানিয়ে তিনি বলেন, ‘রাজস্ব আদায়ের গতি ভালো; এটা অব্যাহত থাকলে বছর শেষে সরকারের ব্যাংক ঋণ গ্রহণের পরিমাণ বাজেটের লক্ষ্যমাত্রার মধ্যেই থাকবে।’

বাংলাদেশ ব্যাংক গত বৃহস্পতিবার দেশের অর্থনীতির প্রধান সূচকগুলোর পাক্ষিক তথ্য প্রকাশ করেছে। তাতে দেখা যায়, চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের ১ জুলাই থেকে ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত সময়ে সরকার প্রয়োজনীয় খরচ মেটাতে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে মোট ১৪ হাজার ২০২ কোটি টাকা ঋণ নিয়েছে। রাজস্ব আদায় বাড়লেও সঞ্চয়পত্র বিক্রি কমে যাওয়ায় ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে হচ্ছে সরকারকে। গত ২০২০-২১ অর্থবছরের এই সাড়ে মাসে ৪ হাজার ৩৩৪ কোটি ২১ লাখ টাকা ঋণ নিয়েছিল সরকার।

চলতি অর্থবছরের বাজেটে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে ৭৬ হাজার ৪৫২ কোটি টাকা ঋণ গ্রহণের লক্ষ্য ধরা আছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য ঘেঁটে দেখা যায়, গত অর্থবছর ব্যাংক থেকে সরকারের ঋণ নেয়ার চাহিদা ছিল বেশ কম। শুরুর দিকে সরকার ব্যাংক থেকে যে পরিমাণ ঋণ নিয়েছিল পরিশোধ করেছিল তার চেয়ে বেশি। তবে শেষদিকে গিয়ে নিট ঋণ দাঁড়ায় ২৬ হাজার ৭৮ কোটি টাকা। যদিও সরকারের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮৪ হাজার ৯৮০ কোটি টাকা। তার আগের অর্থবছর ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে রেকর্ড ৭২ হাজার ২৪৬ কোটি টাকা নিয়েছিল সরকার।

চলতি অর্থবছরের প্রথম তিন মাসের (জুলাই-সেপ্টেম্বর) রাজস্ব আদায়ের তথ্য প্রকাশ করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। তাতে দেখা যায়, এই তিন মাসে ৫৮ হাজার ৩৫১ কোটি টাকার লাজস্ব আদায় হয়েছে। তা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে প্রায় ১৭ শতাংশ বেশি।

এই তিন মাসে ৮ হাজার ৫৫৮ কোটি ১৪ লাখ টাকার নিট সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে। গত বছরের একই সময়ে বিক্রি হয়েছিল ১১ হাজার ৬০৮ কোটি ২৪ লাখ টাকা। এ হিসাবে এই তিন মাসে নিট বিক্রির পরিমাণ কমেছে ২৬ দশমিক ২৭ শতাংশ।

সর্বশেষ সেপ্টেম্বর মাসে নিট বিক্রির পরিমাণ ছিল ২ হাজার ৮২৫ কোটি ৫৬ লাখ টাকা। এটি গত বছরের সেপ্টেম্বরের তুলনায় প্রায় অর্ধেক; গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে সঞ্চয়পত্রের নিট বিক্রির পরিমাণ ছিল ৪ হাজার ১৫৩ কোটি টাকা।

সঞ্চয়পত্র খাতে সরকারকে যাতে বেশি সুদ পরিশোধ করতে না হয়, সে জন্য বিক্রি কমাতে গত ২২ সেপ্টেম্বর থেকে ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সব ধরনের সঞ্চয়পত্রের সুদের হার ২ শতাংশের মতো কমিয়ে দিয়েছে সরকার।

এর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে বিক্রিতে। আর এতে সরকারের ভবিষ্যৎ ঋণের বোঝা লাঘবের পথ মসৃণ হয়েছে বলে মনে করছেন অর্থনীতির গবেষক বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) গবেষক জায়েদ বখত।

তিনি বলেন, মুনাফার হার কমানোয় সঞ্চয়পত্র থেকে সরকারের ঋণ গ্রহণের পরিমাণ আগামী দিনগুলোতে আরও কমবে। এক ধরনের স্বস্তিতে থাকবে সরকার।

রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণী ব্যাংকের চেয়ারম্যান জায়েদ বখত বলেন, সঞ্চয়পত্রের মুনাফার ওপর সুদের হার কমানো ছাড়া সরকারের উপায় ছিল না। গত অর্থবছরে সুদ-আসল বাবদ সরকারকে ৭০ হাজার কোটি টাকার বেশি পরিশোধ করতে হয়েছে। এটা একটা বিশাল অঙ্ক; বাজেট থেকে সুদ-আসল বাবদ এত টাকা চলে গেলে অন্য কাজ কীভাবে হবে। তাই আমি মনে করি সঞ্চয়পত্রের সুদের হার কমিয়ে সরকার ঠিক কাজটিই করেছে। এখন বিক্রি আরও কমে আসবে; সরকারকে বেশি সুদ পরিশোধ করতে হবে না। ব্যাংকের চেয়ে সঞ্চয়পত্রের সুদের হার অনেক বেশি। সে কারণে সঞ্চয়পত্র থেকে যতো কম ঋণ নেয়া যায় ততোই ভালো।

এবারের বাজেটে সঞ্চয়পত্র থেকে ৩২ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেয়ার লক্ষ্য ধরেছে সরকার।

সঞ্চয়পত্র থেকে গত ২০২০-২১ অর্থবছরে ৪২ হাজার কোটি টাকা ঋণ নিয়েছিল সরকার। মূল বাজেটে এ খাত থেকে ২০ হাজার কোটি টাকা ধার করার লক্ষ্য ধরা হয়েছিল। বিক্রি অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় ৩ জুন ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণার সময় সেই লক্ষ্য বাড়িয়ে ৩০ হাজার ৩০২ কোটি টাকা করা হয়।

বছর শেষে দেখা যায়, সরকার সঞ্চয়পত্র থেকে মূল বাজেটের দ্বিগুণেরও বেশি ঋণ নিয়েছে। সংশোধিত বাজেটের চেয়ে বেশি নিয়েছে ৩২ শতাংশ। আর আগের অর্থবছরের চেয়ে বেশি নিয়েছে প্রায় তিন গুণ।

অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গত অর্থবছরে মোট ১ লাখ ১২ হাজার ১৮৮ কোটি ২৪ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়। এর মধ্যে আগে বিক্রি হওয়া সঞ্চয়পত্রের সুদ-আসল বাবদ ৭০ হাজার ২২৯ কোটি টাকা গ্রাহকদের পরিশোধ করা হয়। সে হিসাবে নিট বিক্রির পরিমাণ ছিল ৪১ হাজার ৯৬০ কোটি টাকা।

আগে বিক্রি হওয়া সঞ্চয়পত্রের সুদ-আসল গ্রাহকদের পরিশোধের পর যেটা অবশিষ্ট থাকে, তাকে বলা হয় নিট বিক্রি। ওই অর্থ সরকারের কোষাগারে জমা থাকে এবং সরকার তা রাষ্ট্রীয় কর্মসূচি বাস্তবায়নে কাজে লাগায়। বিনিময়ে সঞ্চয়পত্রের গ্রাহকদের প্রতি মাসে সুদ দিতে হয়। এ কারণে অর্থনীতির পরিভাষায় সঞ্চয়পত্রের নিট বিক্রিকে সরকারের ‘ঋণ’ বা ‘ধার’ হিসেবে গণ্য করা হয়।

এর আগে ২০১৯-২০ অর্থবছরে সরকার সঞ্চয়পত্র থেকে ১৪ হাজার ৪২৮ কোটি টাকা ঋণ নিয়েছিল।

বাংলাদেশের ইতিহাসে সঞ্চয়পত্র থেকে সরকার সবচেয়ে বেশি ঋণ নিয়েছিল ২০১৬-১৭ অর্থবছরে, ৫২ হাজার ৪১৭ কোটি ৪৮ লাখ টাকা।

সঞ্চয়পত্র খাতে সরকারকে যাতে বেশি সুদ পরিশোধ করতে না হয় সে জন্য গত ২২ সেপ্টেম্বর সঞ্চয়পত্রের সুদ কমিয়ে দিয়েছে সরকার।

নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, এখন ১৫ লাখ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগের ক্ষেত্রে এক রকম সুদের হার, ৩০ লাখ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগের ক্ষেত্রে এক রকম হার এবং ৩০ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে আরেক রকম হার নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে।

তবে ১৫ লাখ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগের ক্ষেত্রে মুনাফার হারে সরকার হাত দেয়নি। অর্থাৎ আগে যে হারে সুদ পাওয়া যেত, এখনও সেই হারে পাওয়া যাবে।

সাত বছর আগে ২০১৫ সালের ২৩ মে সব ধরনের সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার গড়ে ২ শতাংশের মতো কমিয়েছিল সরকার।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads