• বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ১১ জৈষ্ঠ ১৪২৮

ফিচার

ইংরেজিতে পারদর্শিতা ও ভীতি জয়ের ক্লাব

  • অরণ্য সৌরভ
  • প্রকাশিত ০৮ নভেম্বর ২০২১

সাবলীল সৃজনশীলতা প্রকাশের উদ্দেশ্যকে সামনে রেখেই ক্লাবটি যাত্রা শুরু করে। এছাড়া ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্যের সাথে পরিচিত হওয়া, সৃজনশীল প্রতিভার বিকাশ ঘটানো, নিত্যনতুন দক্ষতা অর্জন করার পাশাপাশি সর্বজনীনভাবে সকল ডিপার্টমেন্ট এমনকি কলেজ পর্যায়ের শিক্ষার্থীরাও যেন ইংরেজি ভাষায় দক্ষতা অর্জন করতে পারে, সেসব উদ্দেশ্যকে সঙ্গী করেই ক্লাবের পথচলা। ২০১৮ সালের ১৩ নভেম্বর ২০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে যাত্রা শুরু করা কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ (সিইউবি) ইংলিশ ক্লাবের সদস্য ১০০ জনেরও বেশি।

ইউনিভার্সিটিতে একদল আগ্রহী তরুণ-তরুণীকে দেখলেন ওরা কোনো না কোনো সৃজনশীল শৈল্পিক মাধ্যমে নিজেদের প্রকাশ করতে চাচ্ছে, আরো পারদর্শী হতে চাচ্ছে। তখন আমাদের ইংরেজি ডিপার্টমেন্টের ফ্যাকাল্টি মুহাম্মাদ শাহরিয়ার কামাল এই ক্লাবটি চালু করেন। সেই থেকেই ক্লাবের গল্পের শুরু, ক্লাবের সূচনা—এভাবেই ক্লাব গড়ার পেছনের গল্প বলছিলেন ক্লাবের বর্তমান উপদেষ্টা ও ইংলিশ ডিপার্টমেন্টের অ্যাক্টিং হেড আনিকা সুবাহ্ আহমেদ উপমা।

ক্লাব প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি নাভিদ আলম বলেন, সহযোগিতা এবং অংশগ্রহণ দুটি জিনিস প্রত্যেক ক্লাব সদস্যের থাকা প্রয়োজন।

ক্লাবের প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক সানজিদা তাবাসসুম বলেন, আমরা শিক্ষার্থীদের লুকানো সৃজনশীলতা প্রদর্শন এবং দক্ষতা বিকাশের জন্য কাজ করছি।

বর্তমান সহ-সভাপতি নওশিন বলেন, আমাদের ক্লাবটি অনেক প্রাণবন্ত, যেখানে প্রতিনিয়ত অনুষ্ঠান হয়ে থাকে। এর অংশ হতে পেরে আমি গর্বিত।

সাধারণ সম্পাদক মাহজাবীন চৌধুরী বলেন, একসাথে একটি চ্যালেঞ্জিং পরিস্থিতি অতিক্রম করার জন্য ইতিবাচকতা তৈরি করছি। ইংলিশ ক্লাবে আমরা ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে পার্থক্য করি না। বরং একটি চমৎকার ফলাফল তৈরি করতে একসাথে কাজ করছি। একটি দল এবং একটি সুরক্ষিত ক্লাব গড়ে তোলার লক্ষ্য আমাদের ওপর অর্পিত।

ঢাকা ও ঢাকার আশপাশের কলেজের শিক্ষার্থীদের ইংরেজি ভাষার দক্ষতা উন্নতি করার লক্ষ্যে দক্ষতা বৃদ্ধির অধিবেশন করেছেন ক্লাবটি। যেখানে ৫০০ জন ছাত্রছাত্রী অধিবেশনে অংশ নিয়েছিলেন।

আহমেদ উপমা বলেন, আমরা আশা করছি ভবিষ্যতে আরও অনেক শিক্ষামূলক পাঠক্রম সংক্রান্ত কার্যক্রম পরিচালনা হবে এবং আরো উন্নতি হবে।

ক্লাবটি যেসব কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে তার মধ্যে রয়েছে—বিভিন্ন রকমের উৎসাহমূলক জাতীয় পর্যায়ের প্রোগ্রামের আয়োজন যেমন: ইংরেজিতে দক্ষতা বৃদ্ধি, ইংরেজি অলিম্পিয়াড, সৃজনশীল সাহিত্য, কবিতা আবৃত্তি ও লেখা, জনসাধারণের মাঝে কথা বলার দক্ষতা এবং বক্তৃতা প্রদান করা ইত্যাদি।

ক্লাবটির কার্যক্রম বিশ্ববিদ্যালয়ের গণ্ডি পেরিয়ে ঢাকা ও আশপাশের অনেক কলেজ ছাত্রছাত্রীরা যেন উপকৃত হয় সেই ধারাবাহিকতায় অন্যান্য বিভাগের শিক্ষার্থীরাও ক্লাবের কার্যক্রমে সক্রিয় থাকার ব্যবস্থা রেখেছেন।

কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের ইংলিশ ক্লাব ছোট বড় অনেক রকমের সাফল্যই অর্জন করেছে যাত্রা শুরুর পর থেকে। ২০২০ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব থেকে বড় ও সফল প্রোগ্রামের আয়োজন করেন ক্লাবটি। যেখানে প্রায় ১.৫০ লাখেরও বেশি অনলাইন দর্শক ছিল এবং দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ৭০০-এর বেশি জন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন। এছাড়া করোনা মহামারিতে বিভিন্ন দক্ষতা বৃদ্ধির সেশন অনলাইনে করে যাচ্ছে। এর ফলে বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্তের কলেজ ছাত্রছাত্রীরা উপকৃত হচ্ছে। ইংলিশ ক্লাব ও ইংলিশ বিভাগের যৌথ পরিচালনায় সর্বপ্রথম নিউজলেটার প্রচার করার ব্যবস্থা করেন এবং প্রতিবছরই এটি প্রকাশ করার একটি পরিকল্পনা রেখেছেন। গত ৬ মাসে ৮টি সেশন পরিচালনা করেছে ক্লাবটি।

আনিকা সুবাহ আহমেদ উপমা বলেন, একটি ঝিনুক মুক্তা তৈরিতে অনেক সময় নিয়ে থাকে, যখন মুক্তা হয় তখন মানুষের কাছে ঝিনুকের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায়। ঠিক তেমনি ক্লাবটি ধীরে ধীরে সাফল্যর শিখরে পৌঁছে যাবে এটাই আমরা প্রত্যাশা করি।

ইংলিশ ডিপার্টমেন্টের সকল শিক্ষার্থীই স্বয়ংক্রিয়ভাবে এই ক্লাবের অংশ। কিন্তু অন্যান্য ডিপার্টমেন্টের শিক্ষার্থীরা এই ক্লাবে অংশগ্রহণ করতে চাইলে ক্লাবের সভাপতি বা সাধারণ সম্পাদকের সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন ফরম পূরণের মাধ্যমে সদস্য হতে পারবেন।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে আনিকা সুবাহ্ আহমেদ উপমা বলেন, ক্লাবটি গঠনের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে ইংরেজিতে ছাত্রছাত্রীদের ভিত্তি শক্ত করা এবং ইংরেজি ভীতি দূর করা। দেশের সকল অঞ্চলের মানুষ যেন ক্লাবটির উপকারিতা পেয়ে থাকে সেদিকে নজর দেওয়া।

তিনি আরো বলেন, ছাত্রছাত্রীদের একটি প্ল্যাটফরম তৈরি করে দেওয়া যেখানে ছাত্রছাত্রীরা ইংরেজিতে তাদের জ্ঞান ও সৃজনশীলতাকে প্রকাশ করতে পারবে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads