বাংলাদেশের খবর

আপডেট : ০৬ ডিসেম্বর ২০২১

ইন্টারন্যাশনাল অলিম্পিয়াড অন অ্যাস্ট্রোনমি অ্যান্ড অ্যাস্ট্রোফিজিকস

আইওএএতে পাঁচ কিশোরের বাজিমাত


আইওএএ স্কুল ও কলেজ পর্যায়ে জ্যোতির্বিজ্ঞান এবং জ্যোতিঃপদার্থবিজ্ঞানের মেধাভিত্তিক প্রতিযোগিতার সবচেয়ে বড় ও সম্মানজনক আন্তর্জাতিক আসর। বিডিওএএ সংগঠনের মাধ্যমে ২০১৮ সাল থেকে বাংলাদেশ আইওএএ-তে অংশ নিচ্ছে। নির্ধারিত পাঁচজনের দলের সবাই এবারের আসরেই প্রথম পুরস্কার জিতেছেন। তরুণ জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা আগের ধারাবাহিকতায় আইওএএ অলিম্পিয়াড ২০২১-এ অংশ নিয়ে একটি ব্রোঞ্জপদক ও চারটি সম্মাননাসূচক পুরস্কার অর্জন করেছেন। সেই গল্পই জানাচ্ছেন-অরণ্য সৌরভ

করোনাভাইরাসের প্রকোপের মধ্যেই পাঁচ কিশোর বাংলাদেশকে এনে দিয়েছেন অর্জনের জয়মালা। আন্তর্জাতিক অলিম্পিয়াড হলেও যেতে হয়নি আয়োজক দেশ কলম্বিয়ায়। ছিল না কোনো উৎসব, ঝলমলে আয়োজন। নিস্তব্ধ পৃথিবীর মতো, ঘরের এক কোণে স্কিনের সামনে বসেই অনুষ্ঠিত হয়ে গেল আন্তর্জাতিক জ্যোতির্বিজ্ঞান ও জ্যোতিঃপদার্থবিজ্ঞান অলিম্পিয়াড ২০২১।

প্রাক্তন ইন্টারন্যাশনাল অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিদের নিয়ে ২০১৭ সালে গঠিত বিডিওএএ স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের মাধ্যমে ২০১৮ সাল থেকেই বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক জ্যোতির্বিজ্ঞান ও জ্যোতিঃপদার্থবিজ্ঞান অলিম্পিয়াডে অংশ নিচ্ছে। নির্ধারিত পাঁচজনের দলের সবাই এবারের আসরে প্রথম পুরস্কার জিতেছেন। আইওএএ স্কুল ও কলেজ পর্যায়ে জ্যোতির্বিজ্ঞান এবং জ্যোতিঃপদার্থবিজ্ঞানের মেধাভিত্তিক প্রতিযোগিতার সবচেয়ে বড় ও সম্মানজনক আন্তর্জাতিক আসর। বিশ্বের ৫৩টি দেশ থেকে বাছাইকৃত প্রায় তিন শতাধিক খুদে জ্যোতির্বিজ্ঞানী এবারের ১৪তম আইওএএ অলিম্পিয়াডে অংশ নিয়েছেন।

আট দিনব্যাপী (১৪ নভেম্বর থেকে ২১ নভেম্বর) কলম্বিয়ার রাজধানী বোগোটাতে অনুষ্ঠিত ১৪তম ইন্টারন্যাশনাল অলিম্পিয়াড অন অ্যাস্ট্রোনমি অ্যান্ড অ্যাস্ট্রোফিজিক্স ২০২১-এ অংশ নিয়ে টিম বাংলাদেশের তরুণ জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা একটি ব্রোঞ্জপদক ও চারটি সম্মানি পদক পুরস্কার অর্জন করেছেন।

এ বছরের আঞ্চলিক পর্যায়ে ন্যাশনাল রাউন্ড, অনুশীলনের ক্যাম্প, এক্সটেন্ডেড ক্যাম্প ইত্যাদি ক্রমিক ধাপের মাধ্যমে সারাদেশের চারশত শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করার জন্য পাঁচজনকে বাছাই করা হয়।

তাদের মধ্য থেকে ব্রোঞ্জ পদক জয় লাভ করেন ঢাকা রেসিডেনশিয়াল মডেল কলেজের আদনান বিন আলমগীর। যিনি বাংলাদেশের ইতিহাসে জ্যোতির্বিজ্ঞানে পদক পাওয়া সর্বকনিষ্ঠ প্রতিযোগি। এছাড়া নটরডেম কলেজের শিক্ষার্থী তূর্য রায় ও ইমদাদুল্লাহ রাজি, রাজউক উত্তরা মডেল কলেজের সৈয়দ শাফাত মাহমুদ এবং সিলেটের মুরারি চাঁদ কলেজের শিক্ষার্থী জাকিয়া তাজনুর চৌধুরী লাভ করেন সম্মাননাসূচক পুরস্কার।

এই আসরে বাংলাদেশ দলের টিম লিডারের দায়িত্বে ছিলেন প্রাক্তন আইওএএ প্রতিযোগী ও ২০১৮ সাল থেকে টিম লিডারের দায়িত্বে থাকা ফাহিম রাজিত হোসেন ও মোঃ মাহমুদুন্নবী। অবসারভার প্রাক্তন প্রতিযোগী ও ট্রেইনার অর্ণব চৌধুরী, সুপারভাইজার নূর মোহাম্মদ ইমরান ও হাসনাত মোহাম্মদ নাঈম, ফ্যাসিলেটর হিসেবে অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর খান আসাদ দায়িত্ব পালন করেন। ইনডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ (আইইউবি) ছিলেন বাংলাদেশ দলের পৃষ্ঠপোষকতায়।

আন্তর্জাতিক পর্যায়ে এ প্রতিযোগিতার জন্য বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় একাডেমিক পরামর্শ ও সহযোগিতা প্রদান করার লক্ষ্যে কাজ করছে বাংলাদেশ অলিম্পিয়াড অন অ্যাস্ট্রোনমি অ্যান্ড অ্যাস্ট্রোফিজিকস কমিটি।

 

এখনো অনেক পথ যেতে হবে

আইওএএ-তে জীবনের অনেক বড় একটা অংশ পার হয়ে গেল। অনেকগুলো জিনিয়াসের সাথে দলের সবচেয়ে জুনিয়র সদস্য হিসেবে এতদিন থাকাটা আমার জন্য সৌভাগ্যের। ২০২০ সালে ব্যর্থ হলেও মহাবিশ্বের জন্য ভালোবাসা ও আবেগই আমাকে এগিয়ে নিয়েছে। সিনিয়রদের কঠোর পরিশ্রম না থাকলে এটা সম্ভব হতো না। তবে এখনো অনেক পথ যেতে হবে। প্রত্যাশা রাখি সকল উৎসাহী মানুষের দৃঢ় সংকল্পে আমাদের দেশে জ্যোতির্বিদ্যা অনেক দূর এগিয়ে যাবে। আন্তজার্তিক পর্যায়ে নিজ দেশের প্রতিনিধিত্ব করা একটি সম্মানের ব্যাপার। আমার জন্য এটি একটি জীবন পরিবর্তনকারী অভিজ্ঞতা। এটি আমার জীবনের একটি অংশ যা সর্বদা আমাকে বাধার মুখে অনুপ্রাণিত করবে।

আদনান বিন আলমগীর, ব্রোঞ্জ পদক জয়ী

 

 

 

ভালোলাগা থেকেই অ্যাস্ট্রোনমি শেখা

ম্যাথ অলিম্পিয়াড, ফিজিক্স অলিম্পিয়াডের মাধ্যমেই অলিম্পিয়াডের জগতের সাথে আমার পরিচয়। পরবর্তীতে আন্তর্জাতিক জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াড থেকে বাংলাদেশের জন্য একটা রৌপ্যপদক আনার সৌভাগ্য হয়েছিল। অ্যাস্ট্রোনোমির প্রতি ভালোবাসাটা রাতের আকাশ দেখা থেকে শুরু। ভালোলাগা থেকেই অল্প অল্প অ্যাস্ট্রোনোমি শেখা। এ বছরই প্রথমবারের মতো বিডিওএএ-তে অংশ গ্রহণ করা। বিডিওএএ-তে অংশ গ্রহণের মূল অনুপ্রেরণা ছিল ক্যাম্পে অংশগ্রহণ করা। আমার পুরো জার্নির সবচেয়ে আনন্দময় সময়টা ছিল আইওএএ’র দিনগুলো।

জাকিয়া তাজনুর চৌধুরী

সম্মাননাসূচক পুরস্কার জয়ী

 

 

আগামীতে আরো ভালো করতে প্রস্তুত করে তুলব

বাংলাদেশ দলের জন্য টিম লিডারের দায়িত্ব পালন করছি ৪ বছর ধরে (২০১৮-২০২১)। এই দায়িত্বের গুরুত্ব এবং রোমাঞ্চ দুটি আমাকে প্রতিবছর আরো ভাল করার অনুপ্রেরণা দেয়। নিজেও এক সময় এই আন্তর্জাতিক অলিম্পিয়াডে প্রতিযোগী ছিলাম। নিজের বেলাতে পদক অর্জনের আশা না পূরণ হলেও বিডিওএএ-এর মাধ্যমে নতুনদের পদক অর্জনের চেষ্টা করে চলেছি। এভাবেই ২০২০ ও ২০২১ সালে আমার আশা পূরণ হতে দেখে আমি উৎফুল্ল। ব্রোঞ্জ পাব এটা আশা করিনি আবার পুরো দল পদক পাবে এটা ছিল আনন্দের চরম সীমা। আশা করি বাংলাদেশ দলকে আগামীতে আরো ভালো করতে প্রস্তুত করতে পারব।

ফাহিম রাজিত হোসেন

টিম লিডার ও প্রাক্তন আইওএএ প্রতিযোগী


বাংলাদেশের খবর

Plot-314/A, Road # 18, Block # E, Bashundhara R/A, Dhaka-1229, Bangladesh.

বার্তাবিভাগঃ newsbnel@gmail.com

অনলাইন বার্তাবিভাগঃ bk.online.bnel@gmail.com

ফোনঃ ৫৭১৬৪৬৮১