• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
জাবিতে মুগ্ধতা ছড়াচ্ছে অতিথি পাখি

প্রতিনিধির পাঠানো ছবি

ভ্রমণ

জাবিতে মুগ্ধতা ছড়াচ্ছে অতিথি পাখি

  • আশুলিয়া প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ১২ নভেম্বর ২০২১

শান্ত জলের বুকে লাল শাপলার গালিচার মাঝে ঝাঁক বেঁধে ডানা মেলছে অতিথি পাখির দল। উড়ে চলা পাখির কিচিরমিচিরে মুখরিত চারিপাশ। লেকের জলে পাখিদের ভেসে বেড়ানো আর জলকেলির দৃশ্য যে কারও দৃষ্টি জুড়াবে। খুঁনসুটি আর ছোটাছুটিতে পাখিরা দিনভর মাতিয়ে রাখে বিশ্ববিদ্যালয়ের জল, স্থল আর আকাশ। শীতের মৌসুমে প্রকৃতির অপরূপ অলঙ্কার হয়ে ওঠা এ অতিথি পাখির ঝাঁক বেঁধে উড়ে চলার দৃশ্য দেখে মনে হয় যেন জলরঙে আঁকা ছবি।

এরই মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন প্রশাসনিক ভবনের সামনের লেক, ওয়াইল্ড লাইফ রেসকিউ সেন্টারের ভেতরের লেক, ট্রান্সপোর্ট সংলগ্ন লেকসহ সুইমিংপুল সংলগ্ন জয়পাড়া লেকে আশ্রয় করে নিয়েছে তারা।

এই পরিযায়ী পাখিগুলোকে আদর করে সবাই ডাকে অতিথি পাখি! শীতকালে বাংলাদেশের অনেক জায়গায় এই ‘অতিথি’ পাখিদের আনাগোনা দেখা যায়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সবুজে ঘেরা ক্যাম্পাসও একটি। ডাঙাবাসী কিংবা জলচর—দুই ধরনের পাখিরই দেখা মেলে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে। ডানায় ভর করে উড়ে আসা এই পাখিগুলোর নামও ভারি বাহারি। 

প্রতিবছর শীতের শুরুতেই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সবুজ চত্বরে আবাস গড়তে শুরু করে এসব পাখি। জাহাঙ্গীরনগর প্রাণিবিদ্যা বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, প্রতিবছর বিশ্ববিদ্যালয়ের লেকগুলোতে কমপক্ষে ৮০ প্রজাতির পরিযায়ী পাখি আসে। ১৯৮৮ সালে প্রথমবারের মতো ক্যাম্পাসের জলাশয়গুলোতে তাদের আগমন ঘটে। সে বছর তিন প্রজাতির ৮৫০টি পাখির দেখা মেলে। এরপর প্রতিবছরই এই সংখ্যা বেড়েছে।

অতিথি পাখির পাশাপাশি বিভিন্ন বিলুপ্ত প্রজাতির পাখিরও দেখা মেলে এখানে। সচরাচর যেসব পাখি দেখা যায়, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো জলময়ূর, ডুবুরি, খোঁপা ডুবুরি, ছোট পানকৌড়ি, বড় পানকৌড়ি, শামুক ভাঙা বা শামুক খোলা, কালো কুট, কাদাখোঁচা বা চ্যাগা, জলের কাদাখোঁচা পাখি, ছোট জিরিয়া, বাটান, চা-পাখি, সবুজ পা, লাল পা পিও, লাল লতিফা বা হটটিটি, গঙ্গা কবুতর, কাল মাখা গঙ্গা কবুতর লেঞ্জা, কুন্তি হাঁস, জিরিয়া হাঁস, নীলশির, গ্যাডওয়াল, লালশির, পাতারি হাঁস, বামনীয়া, ভুটি হাঁস, কালো হাঁস, চখাচখি, বালি হাঁস, বড় সরালি, ছোট সরালি, রাজহাঁস, কানি বক, ধূসর বক, গো বক, সাদা বক, ছোট বক, মাঝলা বক, কালেম বা কায়েন প্রভৃতি।

ঢাকার কোলাহল আর ব্যস্তময় জীবন থেকে একটু নিরিবিলি স্থানে যেতে পারেন যে কেউ। ছুটির দিনে পর্যটকের সংখ্যা বাড়ে। দেশি, নানা রংঢঙের অতিথি পাখি, প্রজাপতি সবুজে ঘেরা দৃশ্য দেখতে পাওয়া যাবে এখানে।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads