• বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮, ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads
নাম ও রঙ বদলে পুরনো বাস রাস্তায়

পুরনো বাসে দেওয়া হচ্ছে রঙ

সংরক্ষিত ছবি

যোগাযোগ

নাম ও রঙ বদলে পুরনো বাস রাস্তায়

#রুট পারমিট, ফিটনেস নেই তবুও চলছে # ‘সপ্তা খাওয়া’ বন্ধ করেনি ট্রাফিক পুলিশ

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮

দেশব্যাপী ট্রাফিক সপ্তাহে ত্রুটিপূর্ণ যানবাহনে বিপুল পরিমাণ মামলা জরিমানা ও রুট পারমিট বাতিল করা হলেও রঙ বদলে আবারো চলছে রাস্তায়। এ ছাড়া রুট পারমিট, ফিটনেস সনদ, চালক লাইসেন্সও নেই এমন যানবাহন চলছে ট্রাফিক পুলিশকে সপ্তাহ (চাঁদা) দিয়ে। ট্রাফিক কর্মকর্তারা বলছেন, প্রতিদিন মামলা ও জরিমানা করা হচ্ছে। এরপরও কিছু যানবাহন চলতে পারে। আর যানবাহন সংশ্লিষ্টদের দাবি সকল রুটেই নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা সংশ্লিষ্ট বিটের টিআই ও সার্জেন্টদের দেওয়া হলেও অতিরিক্ত মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে।

সরেজমিন দেখা যায়, বিভিন্ন গ্যারেজে জায়গা সঙ্কুলান না হওয়ায় মিরপুরের বিভিন্ন সড়ক ও খোলা জায়গায় যানবাহন মেরামতের কাজ চলছে। মিরপুর-১২ নম্বর সিরামিক রোড, সাগুফতা, বেগুনটিলা, পল্লবী, ইস্টার্ন হাউজিং, ১২ নম্বর থানা রোড, গাবতলী খালেকের মাঠ, মিরপুর-১ নম্বর মাজার রোড, বেড়িবাঁধ, কালশী সড়ক ও মহল্লার অলিগলিতে পুরনো যানবাহন মেরামতের কাজ চলছে।

গত বৃহস্পতিবার মিরপুর ১৩ নম্বর বিআরটিএ অফিসে গিয়ে দেখা গেছে, জোড়াতালি দিয়ে সংস্কার করা বাসগুলোর দীর্ঘ লাইন। বাসচালক সুমন মিয়া বলেন, কিছু গাড়ি পুরনো হয়েছিল, তাই মেরামত করে এখানে এনেছি কাগজপত্র ঠিক করাতে।  আগে তো গাড়ি না দেখেই টাকা পয়সা দিলে ফিটনেসের কাগজ দিয়ে দিত। এখন একটু কড়াকড়ি, বুঝতেই তো পারছেন দেশে ঝামেলা চলছে।

এদিকে মিরপুর-১২ নম্বরের বেগুনটিলায় প্রবেশ করতেই চোখে পড়ে বিভিন্ন বাসের ইঞ্জিন পরিবর্তন, বডি চেঞ্জ, বাম্পার পরিবর্তন, বিভিন্ন সাইজের এঙ্গেল লাগানোর কাজ চলছে। বেগুনটিলা মর্তুজার গ্যারেজের এক শ্রমিক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, কিছু যানবাহনের রুট পারমিট না থাকায় সেগুলো লোগো চেঞ্জ করে অন্য ব্যানারে নামানো হয়েছে।

পল্লবী জোনের এসি (ট্রাফিক) সাইকা পাশা বলেন, ড্রাইভিং লাইসেন্স, রুট পারমিট, ফিটনেস ছাড়া কোনো যানবাহন আমরা চলতে দিচ্ছি না। পাল্লা দিয়ে চলাচল করা যানবাহনের ক্ষেত্রে আমরা সতর্ক রয়েছি।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads