• বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ৩০ কার্তিক ১৪২৫
ads
শিরোপায় চোখ কিশোরীদের

বল হাতে প্রত্যয়ী মারিয়া মান্ডা শিবির। সাফ ফুটবলে ফাইনালের শেষ হাসি হাসতে চায় লাল-সবুজ জার্সিধারীরা

ছবি: বাফুফে

ফুটবল

শিরোপায় চোখ কিশোরীদের

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ১৮ আগস্ট ২০১৮

সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ মহিলা চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম আসরে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলাদেশের কিশোরীরা। ঘরের মাটিতে অনুষ্ঠিত ওই টুর্নামেন্টে ফাইনালে ভারতের মতো শক্তিশালী দলকে ১-০ গোলে পরাস্ত করে ইতিহাসের পাতায় নাম লেখায় আঁখি-তহুরারা। গত বছরের ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত সে আসরে অপরাজিত ছিল লাল-সবুজের কন্যারা। এবারো বাংলাদেশের মেয়েদের এখনো হারাতে পারেনি কোনো দল। একের পর এক ম্যাচ জিতে উঠে এসেছে ফাইনালের রঙিন মঞ্চে। আজ শিরোপা নির্ধারণী কঠিন ম্যাচে গোলাম রব্বানী ছোটনের শিষ্যদের সামনে বাধা সেই ‘ভারত’। ভুটানের রাজধানী থিম্পুর চাংলিমিথান স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা সাতটায় শুরু হবে এ ম্যাচ। গত বছর হারানো প্রতিপক্ষকে এবারো ধরাশায়ী করতে বদ্ধপরিকর তারা। শিরোপা অক্ষুণ্ন রাখাই এখন তাদের একমাত্র লক্ষ্য। 

এবার কিশোরীদের এ আসরটি অনুষ্ঠিত হচ্ছে হিমালয়ের দেশ ভুটানে। ভূপৃষ্ঠ থেকে কয়েক হাজার মিটার উচ্চতার দেশটিতে শুরুতে দম নিয়ে সমস্যা ছিল ছোটনের শিষ্যদের। কিন্তু সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে তারা সেখানে নিজেদের মানিয়ে নেয় বেশ ভালোভাবেই। গ্রুপ পর্বে পাকিস্তানের মতো দলকে ১৪-০ গোলে ধসিয়ে দিয়ে নেপালকে ৩-০ গোলে পরাজিত করে গ্রুপসেরা হিসেবে সেমিফাইনালে পা রাখে মারিয়া মান্ডা-অনুচিংরা। শেষ চারের লড়াইয়ে স্বাগতিক ভুটানকে ৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে ফাইনালের মহামঞ্চে নাম লেখায় বাংলাদেশের কিশোরীরা। প্রতিপক্ষ হিসেবে ভারত বেশ পরিচিত। যদিও এবারের আসরে ভারতীয়দের বিরুদ্ধে লড়াই করা হয়নি। তারপরও তাদের প্রতিটি ম্যাচই বেশ ভালোভাবে পরখ করেছেন কোচ ও ফুটবলাররা। প্রতিটি ফুটবলারের পজিশন ও আক্রমণগুলো দেখেছেন। ভারতের বিরুদ্ধে আজ আক্রমণাত্মক খেলাই হবে লক্ষ্য বাংলাদেশ দলের।

দলের হেড কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন ভারতের বিরুদ্ধে ফাইনালকে সামনে রেখে বলেন, ‘আমরা নিজেদের প্রমাণ করেছি, আমরা এ আসরের ফেবারিট। একে একে তিনটি ম্যাচ জিতেছি। আমি ঢাকা ত্যাগের আগেই বলেছিলাম ম্যাচ বাই ম্যাচ জিততে চাই। এখন আমরা শেষ ম্যাচের সামনে দাঁড়িয়ে। আজ জিতলেই লক্ষ্য পূরণ। আমি দেশবাসীর দোয়া চাই। আমাদের মেয়েরা যেভাবে গ্রুপ পর্ব ও সেমিফাইনালে লড়াই করেছে, সেভাবে খেলতে পারলেই শিরোপা নিয়ে দেশে ফিরতে পারব।’ প্রতিপক্ষ হিসেবে ভারতকে নয়, উল্টো ভারতই এখন ভয়ে আছে বলে জানালেন ছোটন, ‘আমরা আগেও আসরে দুবার ভারতকে পরাজিত করেছিলাম। তাই ওরাই আমাদের নিয়ে ভয়ে থাকবে।’ দলে কোনো ইনজুরি সমস্যা নেই বলেও জানান কোচ।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads