• শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads
পাকিস্তানের বিপক্ষে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ

আজ পাকিস্তানের বিরুদ্ধে জয় পেলে শেষ চার নিশ্চিত হয়ে যাবে স্বাগতিকদের

সংগৃহীত ছবি

ফুটবল

পাকিস্তানের বিপক্ষে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ

বাংলাদেশ-পাকিস্তান ম্যাচ সন্ধ্যা ৭টায়

  • স্পোর্টস রিপোর্টার
  • প্রকাশিত ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮

দুই বছর আগেও বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলকে নিয়ে কেউ বাজি ধরতে চাইতেন না। স্বপ্ন দেখতেন না ম্যাচ জয়ের। কর্মকর্তা থেকে শুরু করে সাধারণ দর্শকরাও ভয়ে থাকতেন লাল-সবুজদের ম্যাচ নিয়ে। বলতে গেলে সবাই মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিলেন দলের ওপর থেকে। তবে সদ্য সমাপ্ত এশিয়ান গেমসে শক্তিশালী কাতারকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো দ্বিতীয় রাউন্ডে নাম লেখানোর পর জাতীয় দলের ওপর আবারো আস্থা ফিরে পেয়েছেন দর্শকরা। জয়ের সেই ধারা দেশেও ধরে রেখেছেন জেমি ডে’র শিষ্যরা। গত মঙ্গলবার থেকে ঘরের মাটিতে শুরু হওয়া সাফ ফুটবলে অঘোষিত শত্রুতে পরিণত হওয়া ভুটানকে ২-০ গোলে হারিয়ে আস্থার পাল্লাটা আরো ভারী করেছেন জামাল ভূঁইয়া-সুফিলরা। আত্মবিশ্বাসটা বেশ ঊর্ধ্বমুখী এখন স্বাগতিকদের। সাফে আজ গ্রুপ পর্বে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে মাঠে নামছে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষ পাকিস্তান। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা ৭টায় শুরু হবে ম্যাচটি। একই দিন প্রথম ম্যাচে ভুটানের মুখোমুখি হবে নেপাল। ম্যাচটি শুরু হবে বিকাল ৪টায়। এ দু্’দলই নিজেদের প্রথম ম্যাচে হেরেছে। ভুটান ২-০ গোলে স্বাগতিকদের কাছে আর নেপাল হেরেছে ২-১ গোলে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে। যদিও ম্যাচে ড্রয়ের সম্ভাবনা জাগিয়েছিল নেপালিরা। কিন্তু ম্যাচের অন্তিম মুহূর্তে গোল হজম করে হারের তিক্ত স্বাদ নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় নেপালকে।

২০১৬ সালে ভুটান বিপর্যয়ের পর স্বয়ং বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সভাপতি কাজী মোহাম্মদ সালাউদ্দিন আস্থা হারিয়ে ফেলেছিলেন মামুনুল-জাহিদদের ওপর থেকে। আস্থা ছিল না দর্শকদেরও। তবে ফুটবল দলের ওপর আস্থা রেখে মঙ্গলবার ভুটানের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নেওয়ার ম্যাচটি দেখতে প্রায় পনেরো হাজার দর্শক উপস্থিত ছিলেন স্টেডিয়ামে। দর্শকদের সেই আস্থার প্রতিদান দিয়েছেন জেমির শিষ্যরা। ভুটানের বিরুদ্ধে ম্যাচ জয়ের পর এখন প্রত্যাশার বেলুনটাও বেশ ফুলে-ফেঁপে উঠেছে। ‘এ’ গ্রুপে থাকা বাংলাদেশ নিজেদের প্রথম ম্যাচে ভুটানের বিরুদ্ধে জিতে সেমিফাইনালের পথে এক পা দিয়ে রেখেছে। গ্রুপের অপর সঙ্গী পাকিস্তান ও নেপাল। আজ পাকিস্তানের বিরুদ্ধে জয় পেলে শেষ চার নিশ্চিত হয়ে যাবে স্বাগতিকদের। এমন ম্যাচে জয় ছাড়া অন্য কিছুই কল্পনা করছেন না জামাল-তপুরা।

পাকিস্তান আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে তিন বছর ছিল নির্বাসিত। নির্বাসন থেকে ফিরে এসেই চলতি এ আসরে নেপালকে পরাস্ত করে নিজেদের শক্তির জানানটা দেয় দলটি। ২-১ গোলে জয় পাওয়া পাকিস্তানের বিরুদ্ধে আজকের ম্যাচটি যে সহজ হবে না, সেটা ভালো করেই জানেন বাংলাদেশ দলের ইংলিশ কোচ জেমি ডে- ‘পাকিস্তান শক্তিশালী প্রতিপক্ষ। তারা নেপালের বিরুদ্ধে নিজেদের শক্তির প্রমাণ দিয়েছে। তারা দারুণ খেলেছে নেপালের বিরুদ্ধে। অতিরিক্ত সময়টা কাজে লাগিয়ে ম্যাচ নিজেদের করে নিয়েছে। তারপরও আমরা সব ম্যাচে ভালো খেলতে চাই। আমরা নিজেদের স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে চাই। আমাদের লক্ষ্য ম্যাচ বাই ম্যাচ। প্রথম ম্যাচে ছেলেরা দুর্দান্ত খেলেছে। আমার পরিকল্পনা মাঠে কাজে লাগিয়েছে। এখন লক্ষ্য পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ম্যাচে জয় পাওয়া। আমাদের পরবর্তী লক্ষ্য নেপাল। জয়ের ধারা আমরা অব্যাহত রাখতে চাই।’

একটা সময় মুখ ফিরিয়ে নেওয়া দর্শকরা বাংলাদেশ দলকে সমর্থন জানাতে বেশ উচ্ছ্বাস নিয়েই মাঠে হাজির হয়েছিলেন। দর্শকদের উচ্ছ্বাস আর সমর্থন দেখে খুশীি ফুটবলাররাও। সমর্থকদের এমন উপস্থিতি আজো কামনা করছেন ফুটবলাররা। স্ট্রাইকার মাশুক মিয়া জনি সমর্থকদের উদ্দেশে বলেন, ‘দর্শকরা অনেক দিন পর মাঠে এসেছেন। আমাদের সহযোগিতা করেছেন। এতে করে আমরা উজ্জীবিত হয়েছি। আশা করছি তাদের এই সমর্থন ভবিষ্যতেও থাকবে।’

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads