• রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads
ঝড়বৃষ্টিতে ব্যাহত থাই কিশোর ফুটবলারদের উদ্ধার অভিযান

থাইল্যাল্ডে গুহায় আটকে পড়া কিশোর ফুটবলাররা

সংরক্ষিত ছবি

এশিয়া

ঝড়বৃষ্টিতে ব্যাহত থাই কিশোর ফুটবলারদের উদ্ধার অভিযান

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ০৮ জুলাই ২০১৮

গুহায় আটকে পড়া কিশোর ফুটবলারদের উদ্ধারে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে পারছে না থাইল্যান্ড কর্তৃপক্ষ। অক্সিজেন সঙ্কটের ফলে তারা অসুস্থ হয়ে পড়লেও বাজে আবহাওয়া এবং ক্রমাগত বৃষ্টির কারণে উদ্ধার অভিযান চালানো প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে। গতকাল শনিবার সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে দেশটির চিয়াং রাই প্রদেশের গভর্নর নারোংসাক অসোত্তানাকরণ এ কথা জানান। খবর সিএনএন।

যৌথ উদ্ধার অভিযানে অংশগ্রহণকারী যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের মতে, আটকে পড়াদের উদ্ধারে প্রাথমিক কৌশল নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রত্যেক কিশোরকে একজন দক্ষ ডুবুরির সাহায্যে গুহা থেকে বের করে আনার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এর নাম দেওয়া হয়েছে ‘বাডি ডাইভ’। তাদের যখন উদ্ধার অভিযান চালানো হবে, তখন যুক্তরাষ্ট্রের ডুবুরিরা নিরবচ্ছিন্ন অক্সিজেন সরবরাহের কাজ করবে। এ অভিযানে যুক্তরাষ্ট্রের পাশাপাশি অস্ট্রেলিয়া, ব্রিটেন এবং অন্যান্য দেশের দক্ষ ডুবুরিরা অংশ নেবেন।

শনিবার সকালে থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী প্রায়ুত চ্যান ওচাঁর উপস্থিতিতে অভিযান শুরুর কথা ছিল। কিন্তু বাজে আবহাওয়ার কারণে চলতি সপ্তাহের শেষের দিকে তা হতে পারে বলে জানা যায়। তবে পরিস্থিতি অনুসারে যেকোনো মুহূর্তে পরিকল্পনা পরিবর্তনও করা হতে পারে।

গত শুক্রবার থাই নেভি সিল বাহিনীর প্রধান রিয়ার অ্যাডমিরাল আফাকর্ন ইয়ো কংকাওয়ে জানান, গুহায় অক্সিজেনের মাত্রা ১৫ শতাংশ কমেছে। চিকিৎসকদের মতে, এর ফলে কিশোরদের মধ্যে হাইপক্সিয়ার লক্ষণ দেখা দিতে পারে। যদিও ব্রিটিশ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গুহায় যে অক্সিজেনের চাপ আছে, তাতে এখনই ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা নেই। সর্বশেষ সংবাদ মতে, গুহার মধ্যে কিশোররা হাঁটতে পারছে এবং পানিতে ডাইভ দেওয়ার দক্ষতা অর্জন করছে।

আবহাওয়াবিদদের মতে, চলতি সপ্তাহে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ আরো বাড়তে পারে। বিশেষজ্ঞদের মতে, গুহায় যে পরিমাণ পানি রয়েছে, তাতে একজন দক্ষ ডুবুরির দুই মাইল দীর্ঘ রাস্তা পাড়ি দিতে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা সময় লাগবে। এ হিসেবে আটকে পড়া ১৩ জনকে উদ্ধারে সময় লাগবে ২ দিন ১৭ ঘণ্টা। সঙ্কীর্ণ রাস্তা এবং গভীর খাতের কারণে এতটা সময় লাগে। কিন্তু এ দুই দিনের মধ্যে আবহাওয়া পরিবর্তন না হলে আরো খারাপ পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads