• সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৮ আশ্বিন ১৪২৬
ads
বাজেটে প্রতিরক্ষা খাতে বরাদ্দ খুবই কম

প্রস্তাবিত বাজেটে সামরিক খাতে বরাদ্দ খুবই কম

সংগৃহীত ছবি

বাজেট

বাজেটে প্রতিরক্ষা খাতে বরাদ্দ খুবই কম

লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ০৮ জুন ২০১৮

প্রস্তাবিত বাজেটে সামরিক খাতে বরাদ্দ খুবই কম মন্তব্য করে তা বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক সেনাপ্রধান লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান। গতকাল বৃহস্পতিবার সংসদে উত্থাপিত ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট বিষয়ে তার অভিমত জানতে চাওয়া হলে তিনি বাংলাদেশের খবরের কাছে এ মন্তব্য করেন।

মাহবুবুর রহমান বলেন, এত কম বাজেটে সামরিকবাহিনীর আধুনিকায়ন হবে না। দেশের সেনাবাহিনীসহ সশস্ত্রবাহিনীর আধুনিকায়নে বাজেটের বরাদ্দ বাড়াতে হবে। এ ছাড়া সামরিক খাতে যে বাজেট বরাদ্দ করা হয় তার বেশিরভাগই ব্যয় হয় তিন বাহিনীর সদস্যদের বেতন-ভাতা-রেশনের খরচ মেটাতে।

প্রতিরক্ষা খাতে বরাদ্দ করা হয়েছে মোট বাজেটের ৬.৩ শতাংশ। বাজেটে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে ২৯ হাজার ৬ কোটি, সশস্ত্রবাহিনী বিভাগে ৩৫ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। চলতি অর্থবছরে ছিল ২৫ হাজার ৭৭১ কোটি টাকা। পরে বাড়িয়ে তা করা হয় ২৬ হাজার ৪৩১ কোটি। ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে ছিল ২৩ হাজার ৭৬২ হাজার কোটি টাকা।

বাজেটে প্রতিরক্ষা খাতে বরাদ্দ নিয়ে একই ধরনের অভিমত বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর (অব.) হাফিজউদ্দিন আহমেদের। তিনি বলেন, রোহিঙ্গা ক্রাইসিস ও মিয়ানমারের সামরিক ব্যয়ের কথা মাথায় রেখে দেশের প্রতিরক্ষা খাতের বরাদ্দ বাড়ানো দরকার।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত জাতীয় সংসদে পেশ করা বাজেট প্রস্তাবে বলেছেন, তিন বাহিনীর সক্ষমতা বাড়ানোর কার্যক্রম অব্যাহত। বাংলাদেশের আকাশসীমার ওপর আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা শনাক্তকরণ এলাকা নির্ধারণ করা হয়েছে এবং সিলেট জেলায় বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর ২টি পূর্ণাঙ্গ বিমানবাহিনী ঘাঁটি স্থাপনের কাজ চলছে। এ ছাড়া অন্যান্য উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড অব্যাহত থাকবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সংসদে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত বাজেট উত্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads