• বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
বদলে যাচ্ছে আদিবাসী নারীদের জীবনযাএার মান

ঘোড়াষাটে তাঁত কারখানায় কাজ করছে আদিবাসী নারীরা

বাংলাদেশের খবর

সারা দেশ

বদলে যাচ্ছে আদিবাসী নারীদের জীবনযাএার মান

  • ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে আদিবাসী জনগোষ্ঠীর জীবন যাএার মান উন্নয়নে এই প্রথম উপজেলার আবিরের পাড়ায় স্থাপন করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু তাঁত প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও কারখানা।

এ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে আদিবাসী জনগোষ্ঠীর ১ হাজার সদস্যকে প্রশিক্ষণ দেওয়া পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।প্রথম পর্যায়ে ২০ জন আদিবাসী নারী এ প্রশিক্ষণে অংশ নিয়েছে।এই উপজেলায় সাওতাঁল,মালো,উরাও, মাহাতো,রবিদাস,সিং ও কর্মকার সহ আদিবাসী জনগোষ্ঠীর প্রায় ৫০ হাজার লোকের বসবাস। আধুনিক তাঁত মেশিন ও কম্পিউটারের মাধ্যমে বাস্তব প্রশিক্ষণ পেয়ে খুশি এ অঞ্চলের আদিবাসীরা।

ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার টি.এম.এ মমিন জানান, আদিবাসী জনগোষ্ঠীর স্থায়ী কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে তাঁতশিল্প স্থাপন,প্রশিক্ষণ ও উৎপাদনের জন্য অর্থ বরাদ্দের আবেদনের প্রেক্ষিতে প্রাথমিক ভাবে ৫৬ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়।এ টাকায় একটি তাঁত ঘর নির্মাণ,সীমানা প্রাচীর ঘেরাও ও ২০টি তাঁত মেশিন কেনা হয়েছে।এসব তাঁত মেশিন পরিচালনা ও প্রশিক্ষণের জন্য সিরাজগঞ্জ ও টাঙ্গাইল থেকে আনা হয়েছে দক্ষ কারিগর।

বর্তমানে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত আদিবাসীরা এ তাঁত কারখানাতে উন্নত মানের লুঙ্গি উৎপাদন করছে এবং এ লুঙ্গি খুচরা বাজারে ৫০০ টাকা হারে রপতানি করা হচ্ছে। সেই সাথে শাড়ি,থান কাপড় ও গামছা তৈরির প্রস্তুতি ও চলছে বলে জানালেন এক প্রশিক্ষক।

ঘোড়াঘাট উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান- মোঃ আলমগীর হোসেন বলেন, এখানে তাঁত কারখানা স্থাপনের মাধ্যমে এ অঞ্চলের আদিবাসীদের জীবন যাএার মান অনেকাংশে উন্নত হয়েছে এবং আগামীতে এ কারখানা থেকে দক্ষ তাঁত শ্রমিক তৈরি করা সম্ভব হবে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads