• শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads

ক্রিকেট

বেতন বাড়ছে ক্রিকেটারদের

  • স্পোর্টস রিপোর্টার
  • প্রকাশিত ১৭ এপ্রিল ২০১৮

গত বছর হুট করেই ক্রিকেটারদের বেতন বাড়ানো হয়েছিল দ্বিগুণ। এবারো বাড়ছে বেতন, তবে গত বছরের মতো নয়। এবার কেন্দ্রীয় চুক্তিতে ক্রিকেটারদের সংখ্যা কমিয়ে আনা হচ্ছে। এমন তথ্য জানিয়েছেন ক্রিকেট পরিচালনা কমিটির প্রধান আকরাম খান।

আগামীকাল বিসিবির পরিচালনা পরিষদের সভা রয়েছে। এখানেই মাশরাফি-সাকিবদের বেতন বাড়ানোর প্রস্তাব করবে ক্রিকেট পরিচালনা কমিটি। ক্রিকেটারদের বেতন এবার কেমন বাড়বে, তা অবশ্য নিশ্চিত করে বলতে পারেননি আকরাম খান। এ প্রসঙ্গে গতকাল মিরপুরে তিনি বলেন, ‘গতবার আমরা প্রায় ১০০ শতাংশ বাড়িয়েছিলাম। ধীরে ধীরে আরো বাড়াব।’

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ক্রিকেটারদের বেতন বেশ ভালো। বিশেষ করে গত বছর বেতন দ্বিগুণ করার পর। তারপরও ধারাবাহিকভাবে বেতন বাড়বে, এটাই নিয়ম। তবে আলোচনা চলছে ভিন্ন জায়গাতেও। বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপটে মাশরাফিদের বেতনের অঙ্কটা বড় মনে হলেও বৈশ্বিকভাবে তা কতটা মানানসই, সেটা নিয়েও প্রশ্ন। কারণ ভারত, ইংল্যান্ড কিংবা অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটাররা মাসিক যে বেতন পান, সেই তুলনায় মাশরাফি-সাকিবদের বেতন তুলনামূলক অনেক কম। এমন আলোচনা উঠবে বিসিবির বোর্ড সভায়। তবে আকরাম খান অবশ্য সেই প্রসঙ্গ এড়াতে চাইলেন, ‘বেতন কাঠামো নিয়ে অন্য দেশের সঙ্গে তুলনা করা ঠিক নয়। আমরা প্রতিবছর সাধারণত বাড়াই। এবারো বাড়াব।’

বেতন বাড়বে, স্বভাবতই খুশি ক্রিকেটাররা। তবে কারো কারো জন্য দুঃসংবাদ। কারণ কেন্দ্রীয় চুক্তিতে থাকা ক্রিকেটারদের সংখ্যা এবার কমে আসতে পারে। গত বছর কেন্দ্রীয় চুক্তিতে থাকা ক্রিকেটারের সংখ্যা ছিল ১৬। এবার কমবে তা থেকে। কতজন কমতে পারে এই তালিকা থেকে। আগাম বলতে পারেননি আকরাম খান। তবে তিনি জানিয়েছেন, ‘আমরা প্রস্তাব এখনো চূড়ান্ত করতে পারিনি। কাল (আজ) ঠিক করে ফেলব। তবে এটা ঠিক, চুক্তিতে খেলোয়াড় কমবে। অনেক কিছু বিবেচনা করতে হচ্ছে। খেলোয়াড়ের সংখ্যা কম থাকলে ভালো হয়।’ পরিচালনা পর্ষদের সভা এপ্রিলে হলেও নতুন বেতন কাঠামো কার্যকর হবে ২০১৮ সালের জানুয়ারি থেকে।

গতবার ক্রিকেটারদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বেতনের অঙ্কে বড় পরিবর্তন আনে বিসিবি। মাশরাফি-সাকিবদের মতো ‘এ প্লাস’ শ্রেণিতে থাকা খেলোয়াড়দের বেতন আড়াই লাখ থেকে বাড়িয়ে করা হয় ৪ লাখ টাকা। ‘এ’ শ্রেণিতে থাকা মাহমুদউল্লাহর ২ লাখ থেকে বাড়িয়ে ৩ লাখ; ‘বি’ শ্রেণিতে ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক, সাব্বির রহমান ও সৌম্য সরকারের বেতন দেড় লাখ থেকে বাড়িয়ে ২ লাখ; ‘সি’ শ্রেণিতে রুবেল হোসেন, তাসকিন আহমেদ, মোস্তাফিজুর রহমান ও মোসাদ্দেক হোসেনদের মাসিক বেতন ১ লাখ থেকে বাড়িয়ে দেড় লাখ এবং ‘ডি’ শ্রেণিতে নতুন অন্তর্ভুক্ত হওয়া ক্রিকেটারদের বেতন ৭৫ হাজার থেকে বাড়িয়ে করা হয় ১ লাখ টাকা।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের আগে আগামী জুনে বাংলাদেশের ওয়ানডে সিরিজ খেলার কথা আছে আফগানিস্তানের সঙ্গে। সেটির তারিখ অবশ্য এখনো নির্ধারণ করা হয়নি বলে জানিয়েছেন আকরাম খান। তবে ভেন্যু নিয়ে কোনো সমস্যা নেই। এ প্রসঙ্গে তিনি জানান, ‘এখনো তারিখ নির্ধারণ করিনি। হয়তো ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের আগেই আমরা এটা করব। ভেন্যু নিয়ে কোনো সমস্যা নেই। ওরা যেটা প্রস্তাব করেছে সেটাকে তারা হোমগ্রাউন্ড হিসেবে নিয়েছে। ওরা ওয়ানডে খেলতে বেশি পছন্দ করছে। আমরা আলোচনা করে পরে সিদ্ধান্ত নেব। আমাদের যেহেতু ওয়েস্ট ইন্ডিজে লম্বা একটা ট্যুর আছে সেভাবেই সুবিধামতো মিলিয়ে নিয়ে ঠিক করব।’ অন্যদিকে বাংলাদেশের মাটিতে অস্ট্রেলিয়ার সিরিজ প্রসঙ্গে আকরাম খান জানান, ‘ওরা (অস্ট্রেলিয়া) এই সময়ে খেলতে চাইছে না। আগামী বছর নিতে চাইছে, এটা আগেই বলেছে। তবে এখনো চূড়ান্তভাবে কিছু জানায়নি।’

জাতীয় ক্রিকেট দলের ভেতরে কিংবা বাইরে থাকা ক্রিকেটাররা অনেক সময় ক্ষ্যাপ খেলে থাকেন। কেউ কেউ খেলতে গিয়ে ইনজুরির শিকারও হন। সম্প্রতি নাসির হোসেন ঢাকার বাইরে ফুটবল খেলতে গিয়ে ইনজুরির শিকার হয়েছেন। এ প্রসঙ্গে আকরাম খান বলেন, ‘যারা জাতীয় দলের বাইরে-ভেতরে থাকে তাদের নিয়ে আমরা সব সময় এসব ক্ষেত্রে পদক্ষেপ নিয়ে থাকি। নাসিরের বিষয়েও আমরা আলোচনা করছি কী করা যায়। যারা জাতীয় দলের হয়ে বিভিন্ন সময় খেলে তারা বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের অধীনে হওয়া যেকোনো টুর্নামেন্ট খেলার সুযোগ পায়। সেসবের বাইরে কোথাও খেললে আমরা কিন্তু সেটা গুরুত্বের সঙ্গেই নেই।’

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads