• বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারি ২০২১, ৭ মাঘ ১৪২৭
সাক্ষাৎকার দিতে আসছেন রোডস

স্টিভ রোডস

সংরক্ষিত ছবি

ক্রিকেট

সাক্ষাৎকার দিতে আসছেন রোডস

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের কোচ

  • স্পোর্টস রিপোর্টার
  • প্রকাশিত ০৬ জুন ২০১৮

শ্রীলঙ্কান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে দায়িত্ব ছাড়ার পর থেকেই কোচ খুঁজছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আসন্ন সিরিজের আগেই নতুন কোচ আসবে বলে জানিয়েছিল বিসিবি। শুক্রবার জাতীয় দলের কোচ হতে সাক্ষাৎকার দিতে আসছেন ইংল্যান্ডের স্টিভ রোডস। সবকিছু ঠিক থাকলে হয়তো নতুন কোচ হিসেবে শিগগিরই দায়িত্ব  নেবেন রোডস।

সম্প্রতি বিসিবি কোচ খোঁজার দায়িত্ব তুলে দেন দক্ষিণ আফ্রিকান কোচ ও ক্রিকেট বিশেষজ্ঞ গ্যারি কারস্টেনকে। মূলত তার পরামর্শেই বাংলাদেশে আসছেন সাবেক উইকেটকিপার কাম ব্যাটসম্যান রোডস।

বিসিবি আগামী ১৫ জুনের মধ্যেই প্রধান কোচ নিয়োগ দিতে চায়। এর আগে বেশ কয়েকজনের সঙ্গে আলোচনা হলেও তারা শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশে দায়িত্ব পালন করতে রাজি হননি। এবার অবশ্য সেই সুযোগটা খুব কমই। কারণ কারস্টেন রোডসের সম্মতি নিয়েই বিসিবির কাছে তার নাম প্রস্তাব করেছেন।

কিন্তু এ অবস্থায় রোডসই যে পরবর্তী কোচ হচ্ছেন এটার নিশ্চয়তা দিচ্ছেন না কেউ। শুক্রবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে নতুন কোচের সাক্ষাৎকার গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন বিসিবির প্রধান নির্বাহী। রোডস ওখানে তার কর্মপরিকল্পনা উপস্থাপন করবেন। সব কিছু ঠিক থাকলেই তাকে কোচ হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হবে। গতকাল মঙ্গলবার মিরপুরে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী জানিয়েছেন, ‘স্টিভ রোডস সংক্ষিপ্ত তালিকায় আছেন। আশা করছি আগামী ২ বা ৩ দিনের মধ্যে বোর্ডের সঙ্গে দেখা করবেন। আপনারা অতীতে দেখেছেন পাইবাস-ফিল সিমন্স এসেছিলেন। এরই ধারাবাহিকতায় রোডস এসেও নিয়োগ প্রক্রিয়ার সঙ্গে যারা সংশ্লিষ্ট আছেন তাদের সঙ্গে দেখা করবেন। ওখানে নিজের পরিকল্পনাগুলো তুলে ধরবেন। আমরা তার কাছে আগামী বিশ্বকাপ ও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়ে পরিকল্পনা জানতে চাইব।’

২০১৯ বিশ্বকাপের আসর বসবে ইংল্যান্ডে। সেই চিন্তা থেকে মূলত স্টিভ রোডসকে আনা। প্রধান নির্বাহীর কাছে রোডসকে পছন্দের কারণ জানতে চাইলে তিনি জানান, ‘প্রাথমিকভাবে বেশ কয়েকজন কোচের সঙ্গে কথা বলে বড় নাম এবং অভিজ্ঞতা দুটোকেই প্রাধান্য দিয়েছি। এ মুহূর্তে যে কয়জন কোচ পাওয়া গেছে তার মধ্যে সে (রোডস) বেশি অভিজ্ঞ। তার এই অভিজ্ঞতাকে আমরা গুরুত্ব দিচ্ছি। আগামী বিশ্বকাপ ইংল্যান্ডে। আমরা বিবেচনা করেছি ইংল্যান্ডের কন্ডিশন বা ওই ধরনের কন্ডিশনে অভিজ্ঞ কাউকে সম্পৃক্ত করা গেলে ক্রিকেটারদের জন্য বাড়তি সুবিধা হবে।’

স্টিভ রোডসও আলোচনার কথা জানিয়েছেন। ক্রিকইনফোকে তিনি জানান, ‘আমি নিশ্চিত করতে চাই আমার সঙ্গে তাদের কথা হয়েছে। এমন মর্যাদাপূর্ণ ভূমিকায় কাজ করতে আগ্রহী। তবে এই পর্যায়ে এখনই কিছু চূড়ান্ত নয়। তাই আগে থেকে অনুমান করাও যুক্তিযুক্ত নয়।’

খেলোয়াড় হিসেবে সুনাম অর্জন করতে না পারলেও কোচ হিসেবে খ্যাতি আছে স্টিভ রোডসের। ইংল্যান্ডের জার্সিতে মাত্র ১১টি টেস্ট এবং ৯টি ওয়ানডে খেলেছেন। বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের মধ্যে সাকিবের সঙ্গে তার কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে। প্রথম বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে ২০১০ সালে কাউন্টি দল ওরস্টারশায়ারের হয়ে খেলেছেন সাকিব। সে সময় রোডস দলটির ডিরেক্টর অব ক্রিকেটের পদে ছিলেন। টম মুডি দায়িত্ব ছাড়ার পর ২০০৫ সালের মে মাসে ওরস্টারশায়ারের কোচ হিসেবে নিয়োগ পান। এরপর ২০০৬ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেছেন ক্লাবের ক্রিকেট ডিরেক্টর হয়ে। যদিও এক অপ্রীতিকর ঘটনায় ওরস্টারশায়ারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেছেন।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads