• বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ২৯ কার্তিক ১৪২৬
ads
শতাব্দীর দীর্ঘতম চন্দ্রগ্রহণ শুক্রবার

চন্দ্রগ্রহণ

ছবি : ইন্টারনেট

বৈচিত্র

শতাব্দীর দীর্ঘতম চন্দ্রগ্রহণ শুক্রবার

  • এহতেশাম শোভন
  • প্রকাশিত ২৬ জুলাই ২০১৮

এই শতাব্দীর সবচেয়ে দীর্ঘতম চন্দ্রগ্রহণ হতে চলেছে শুক্রবার। সেদিন চাঁদ পৃথিবীর একেবারে ছায়ার মধ্যে প্রবেশ করবে। আর এ চন্দ্রগ্রহণের স্থায়ীত্ব হবে ১ ঘণ্টা ৪৩ মিনিট। সময়ের দিক থেকে যা এই শতাব্দীর সবচেয়ে দীর্ঘতম চন্দ্রগ্রহণ।

 সূর্য, পৃথিবী ও চাঁদ কক্ষপথে ঘুরতে ঘুরতে একই সরলরেখায় চলে এলে গ্রহণ হয়। এ সময় পৃথিবী যদি চাঁদ ও সূর্যের মধ্যে থাকে, তখন চাঁদ পৃথিবীর ছায়ায় ঢাকা পড়ে যায়। একে বলা হয় চন্দ্রগ্রহণ।

বাংলাদেশ সময় শুক্রবার রাত ১১টা ১৪ মিনিট থেকে শুরু হয়ে শনিবার ভোর ৫টা ২৮ মিনিটের মধ্যে ঘটবে এই শতাব্দির দীর্ঘতম পূর্ণচন্দ্রগ্রহণ। শুধু গ্রহণ হওয়াই নয়, চাঁদ সেদিন সূর্যের আলো বিকিরণ করে লাল হয়ে যাবে। অর্থাৎ ব্লাড মুনও দেখা যাবে একইসঙ্গে। এমনটাই জানিয়েছে নাসা।

তবে পৃথিবীর সব জায়গা থেকে এই চন্দ্রগ্রহণ দেখা যাবে না। অপূর্ব এই দৃশ্য দেখতে পাবে না উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকার মানুষ। আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্য, ভারত, অস্ট্রেলিয়া ও ইউরোপের কিছু দেশ থেকে চন্দ্রগ্রহণ দেখা যাবে। মেঘ না থাকলে বাংলাদেশের মানুষও উপভোগ করতে পারবে এই গ্রহণ।

এর আগে এত বেশিক্ষণ ধরে চন্দ্রগ্রহণ এই শতাব্দীতে কোনও দিন হয়নি। দেড় ঘণ্টার বেশি সময় চন্দ্রগ্রহণ হয়েছে এমনটা নিশ্চয়ই দেখা গিয়েছে। এবার আরও বেশি সময় লাগবে। ফলে এবারের গ্রহণ নিঃসন্দেহে অভিনব ঘটনা হতে চলেছে।

দীর্ঘ সময় স্থায়ী হওয়া চন্দ্রগ্রহণ :

* এর আগের চন্দ্রগ্রহণ হয় ২০১১ সালের ১৫ জুন । সেটা ১০০ মিনিট স্থায়ী হয়েছিল।

* ২০০০ সালের ১৬ জুলাই মাসে চন্দ্রগ্রহণ হয় ১০৭ মিনিট স্থায়ী।

* ১৯৮২ সালে চন্দ্রগ্রহণ হয় ১০৭ মিনিট। 

* ১৯৩৫ সালে চন্দ্রগ্রহণ স্থায়ী হয় ১০১ মিনিট। 

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মানুষ রীতিমত উৎসবের আমেজে এই ‘রক্তাভ চাঁদ’ দেখার আয়োজন করেছে বলে খবর দিচ্ছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো। ঢাকার বিজ্ঞান জাদুঘরে দর্শনার্থীদের জন্য নিয়মিতভাবে সূর্যগ্রহণ ও চন্দ্রগ্রহণ দেখার আয়োজন করা হয়। এবারো এর ব্যবস্থা করা হয়েছে। শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টা থেকে উন্মুক্ত থাকবে জাদুঘর। চন্দ্রগ্রহণ উপলক্ষে থাকবে প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শনী ও সেমিনার। বিজ্ঞান জাদুঘরের সিনিয়র কিউরেটর এ এস এম শফিউল আলম তালুকদার জানান, আকাশ মেঘমুক্ত থাকলে গ্রহণ দেখারও আয়োজন হবে।

উল্লেখ্য, সাধারণত পৃথিবী থেকে চাঁদের গড় দূরত্ব তিন লক্ষ ৮৪ হাজার কিলোমিটার। চাঁদ যেহেতু একটি উপবৃত্তাকার কক্ষপথে ঘোরে, তাই ঘুরতে ঘুরতে কোনও সময় পৃথিবীর কাছে চলে আসে আবার দূরেও চলে যায়। চাঁদ পৃথিবীর সর্বাধিক কাছে তিন লাখ ৫৬ হাজার কিলোমিটারে চলে আসে। আবার দূরে গেলে সর্বাধিক চার লাখ ছয় হাজার কিলোমিটার দূরে চলে যায়। আগামী ২৭ জুলাই পৃথিবী থেকে চাঁদের দূরত্বও প্রায় ৪ লাখ ৬ কিলোমিটারের কাছাকাছি থাকবে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads