• শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads
সুষ্ঠু নির্বাচনে জাতিসংঘের সহযোগিতা চাইল বিএনপি

জাতিসংঘ ও বিএনপি লোগো

নির্বাচন

সুষ্ঠু নির্বাচনে জাতিসংঘের সহযোগিতা চাইল বিএনপি

আলোচনার বিষয়বস্তু মহাসচিবকে জানানো হবে : মিরোস্লাভ

  • রেজাউল করিম লাবলু
  • প্রকাশিত ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮

জাতিসংঘের রাজনীতিবিষয়ক সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মিরোস্লাভ জেনকার সঙ্গে বৈঠক করেছে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলের প্রতিনিধিদল। বৈঠকে বিএনপির পক্ষ থেকে মিরোস্লাভকে জানানো হয়েছে, বিএনপি চায় বাংলাদেশে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হোক। কিন্তু সরকার সে পথে হাঁটছে না। সরকার আবারো ৫ জানুয়ারি ২০১৪ সালের মতো আরেকটি একতরফা নির্বাচন করতে চায়। কিন্তু দেশের জনগণ তা মেনে নেবে না। তাই দেশে সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে জাতিসংঘের সহযোগিতা চায় বিএনপি। জবাবে মিরোস্লাভ বিএনপির প্রতিনিধিদলকে বলেন, জাতিসংঘ মহাসচিব বর্তমানে ঘানা সফরে আছেন। তিনি নিউইয়র্কে ফিরে এলে তাকে আলোচনার বিষয়বস্তু অবহিত করা হবে। বৈঠকের বিষয়ে বাংলাদেশের খবরকে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির এক নেতা।

বৈঠকের বিষয়ে স্থানীয় সাংবাদিকরা জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে তারা কথা বলেছেন। জাতিসংঘের কর্মকর্তা এ ব্যাপারে কী জানিয়েছেন- এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, তারাই বিষয়টি গণমাধ্যমকে জানাবেন।

স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ঘণ্টাব্যাপী বৈঠকে মির্জা ফখরুল ছাড়াও বিএনপির সহ-আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক হুমায়ুন কবির ও নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল মিন্টু অংশ নেন। বৈঠক শেষে তারা ওয়াশিংটনের উদ্দেশে যাত্রা করেন। সেখানে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা, সিনেটরদের সঙ্গে বৈঠক করার কথা রয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির ওই নেতা বলেন, বৈঠককালে বাংলাদেশে রাজপথের বিরোধী দল বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে কারাগারে প্রেরণ, তাকে জামিন না দেওয়া, নেতাকর্মীদের খুন, গুম, নির্বাচনে অনিয়ম, সাম্প্রতিক কোটা সংস্কার ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন নিষ্ঠুরভাবে দমন করার বিষয়গুলো তুলে ধরা হবে।

তিনি বলেন, জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ সহকারী মিরোস্লাভের সঙ্গে বিএনপির প্রতিনিধিদলের বৈঠক হূদ্যতাপূর্ণ হয়েছে। বৈঠকে বিএনপি মহাসচিব লিখিতভাবে দেশের সবশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতি অবহিত করেন। এতে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে জামিন না দেওয়া, অসুস্থ থাকলেও তার চিকিৎসা না দেওয়া, সিটি নির্বাচনে অনিয়ম, ৫ জানুয়ারি ২০১৪-এর মতো আরেকটি একতরফা নির্বাচনের চেষ্টা, বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীদের খুন, গুম, মামলা, হামলা ও নির্যাতনের বিষয়গুলো তুলে ধরা হয়।

বিমানবন্দরে সফরের বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি মির্জা ফখরুল : স্থানীয় সময় বুধবার রাত ২টায় মির্জা ফখরুল দলের নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল মিন্টুকে সঙ্গে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের জন এফ কেনেডি বিমানবন্দরে পৌঁছান। বিমানবন্দরে দলের নেতাকর্মীরা না থাকলেও বেশ কয়েকজন নিকটাত্মীয় তাদের স্বাগত জানান।

স্থানীয় সাংবাদিকরা তার সফর সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, দুই দিনের সফরে তারা যুক্তরাষ্ট্র এসেছেন। তবে সফরের বিষয় নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি বিএনপির এই দুই নেতা।

আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সার্বিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে বিএনপির সঙ্গে আলোচনা করার আগ্রহ প্রকাশ করেন জাতিসংঘের মহাসচিব। দলটিকে এই আগ্রহের কথা জানিয়ে গত সপ্তাহে বিএনপি মহাসচিবকে নিউইয়র্কে আমন্ত্রণ পাঠান আন্তোনিও গুতেরেস। ঢাকাস্থ জাতিসংঘের আবাসিক প্রতিনিধির মাধ্যমে বিএনপি মহাসচিব বরাবর আমন্ত্রণপত্র পাঠানো হয়।

বিমানবন্দরে আটকে দেওয়া হয়েছিল ফখরুলকে : নিউইয়র্কের উদ্দেশে ঢাকা ছাড়তে মির্জা ফখরুল রাতে বিমানবন্দরে গেলে গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা তাকে বাধা দেন। পরে মির্জা ফখরুল বিষয়টি ঢাকাস্থ জাতিসংঘের আবাসিক প্রতিনিধিকে অবহিত করলে তারা সরকারের উচ্চপর্যায়ে যোগাযোগ করে জানান, জাতিসংঘ মহাসচিবের আমন্ত্রণে মির্জা ফখরুল নিউইয়র্কে যাচ্ছেন। তাকে যেন বাধা দেওয়া না হয়। পরে গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা সরকারের উচ্চপর্যায়ে যোগাযোগ করে মির্জা ফখরুলকে বিমানে উঠতে দেন। বিমান ঢাকা ছাড়ার পর মির্জা ফখরুলের নিউইয়র্কে যাওয়ার বিষয়টি বিএনপির পক্ষ থেকে সংবাদমাধ্যমকে জানানো হয়।

যুক্তরাষ্ট্রে লবিং ফার্ম ভাড়া করেছে বিএনপি : জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির পক্ষে আন্তর্জাতিক জনমত গঠন তথা ট্রাম্প প্রশাসনের আনুকূল্য লাভের লক্ষ্যে ওয়াশিংটন ডিসিতে একটি লবিং ফার্ম ভাড়া করা হয়েছে। গত আগস্টে আবদুস সাত্তার নামে এক বিএনপিকর্মী ‘ব্লু স্টার স্ট্র্যাটেজিস’ নামক এক লবিং ফার্মকে ২০ হাজার ডলার দেন। চুক্তির শর্তানুযায়ী সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর অর্থাৎ নির্বাচন পর্যন্ত প্রতি মাসে এ ফার্মকে ৩৫ হাজার ডলার করে দেওয়া হবে। এ লবিং ফার্মটির সহযোগী হিসেবে কাজ করছে ‘রাস্কি পার্টনারস’। প্রচলিত আইনে হোয়াইট হাউজ, কংগ্রেস, প্রশাসনসহ আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থায় ফি’র বিনিময়ে তদবিরকারীদের যোগ্যতা, সক্ষমতা এবং গতিপ্রকৃতির পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণকারী পত্রিকা ‘পলিটিকো’সহ যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকটি গণমাধ্যমে বিএনপির এ লবিং ফার্ম ভাড়া করার সংবাদ ১০ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত হয়।

ব্লু স্টার স্ট্র্যাটেজিসের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হচ্ছেন সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনের ডেপুটি চিফ অব স্টাফ কারেন ট্রামোন্টানো ও চিফ অপারেটিভ অফিসার হচ্ছেন বিল ক্লিনটনের সাবেক সিনিয়র অ্যাডভাইজার জন পডেস্টা। লবিং ফার্ম নিয়োগ প্রসঙ্গে বিএনপির পক্ষ থেকে পলিটিকোকে জানানো হয়েছে, মুক্তবাজার অর্থনীতির সুবাদে অর্থনৈতিক অগ্রগতি ত্বরান্বিত করার পাশাপাশি গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানকে সুসংহত করতে আগ্রহী বাংলাদেশের বৃহৎ এই রাজনৈতিক দল। ইসলামী শিক্ষায় বাংলাদেশের মানুষকে মানবিক মূল্যবোধে উজ্জীবিত করতেও বদ্ধপরিকর বিএনপি। এ লবিং ফার্ম নিয়োগের ব্যাপারে মার্কিন বিচার বিভাগ থেকে পলিটিকো জানতে পেরেছে, বাংলাদেশের আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে বিএনপির পক্ষে ট্রাম্প প্রশাসনকে ব্যবহারের চেষ্টা করা হবে। নির্বাহী প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তা এবং হোয়াইট হাউজ ও কংগ্রেসে প্রভাবশালী সিনেটর, কংগ্রেসম্যানদের সঙ্গে দেনদরবার করবে লবিং ফার্মটি।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads