• মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads

স্বাস্থ্য

আপেল ওষুধের মতোই উপকারী

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ০৬ এপ্রিল ২০১৮

বলা হয়ে থাকে আপনি যদি প্রতিদিন একটি করে আপেল খান তবে আপনাকে সহসা ডাক্তারের কাছে যেতে হবে না। এ কথার প্রমাণ দিল যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক দল। এক জার্নালে প্রকাশিত গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে আপেল খেয়ে ডাক্তার দূরে রাখার মন্ত্র বিশেষত পঞ্চাশোর্ধ্বদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আপেল ওষুধের মতোই হূদস্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত গবেষণাপত্রে বলা হয়েছে, এ বয়সের মানুষেরই হার্ট অ্যাটাক কিংবা স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁঁকি বেশি। আপেল উপকারী ফল- সবল হার্টের জন্য, ফুসফুস, কোলন, লিভার ও স্তন ক্যানসার প্রতিরোধে, ওজন কমানোর ক্ষেত্রে, অ্যাজমা প্রতিরোধে। আপেলের রস দাঁত ভালো রাখে, হাড় মজবুত করে, হজমশক্তি বাড়ায়, শরীর ঠান্ডা রাখে, ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা ও আলঝেইমার্স রোগ প্রতিরোধ করে। আপেলে আঁশ থাকায় এটি শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়। পঞ্চাশোর্ধ্ব মানুষ প্রতিদিন একটি করে আপেল খেলে বছরে হূদরোগ এবং স্ট্রোক থেকে বাঁচতে পারেন। প্রতিবেদনে বলা হয়, পরামর্শ মেনে চলা প্রতি ১০ জনে অন্তত ৭ জনের ক্ষেত্রে ওষুধ সেবনে বাঁচানো সম্ভব ৯ হাজার ৪০০ প্রাণ। দিনে একটি আপেলে বাঁচানো সম্ভব ৮ হাজার ৫০০ প্রাণ। আপেল সাধারণত দুই প্রকারের হয়- লাল ও সবুজ। লাল আপেলের গুণাবলি সম্পর্কে কমবেশি সবাই জানি। সবুজ আপেলে আছে পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন কে। সবুজ আপেল দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখে, ফুসফুসের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটায়, অকালে ত্বকের বয়স বৃদ্ধির বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে। যারা ডায়াবেটিকে আক্রান্ত হয়ে থাকেন তারা লাল আপেলের পরিবর্তে সবুজ আপেল খান। চিকিৎসকদের মতে সবুজ আপেলে লাল আপেলের তুলনায় চিনির পরিমাণ কম থাকে এবং ফাইবার বেশি থাকে। সবুজ আপেল টাইপ ২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়।

-ফয়জুন্নেসা মণি

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads