• শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads

ছবি: সংগৃহীত

স্বাস্থ্য

রাগে ক্ষতি অনেক

  • ফয়জুন্নেসা মণি
  • প্রকাশিত ২৫ এপ্রিল ২০১৮

মানুষের আবেগ-অনুভূতির মধ্যে সবচেয়ে ক্ষতিকর রাগ। এ কথা সবারই জানা যে, অতিরিক্ত রাগ সম্পর্কের মধ্যে অনাকাঙ্ক্ষিত সঙ্কট সৃষ্টি করে। রাগের কারণে অনেক সময় নিজেরই সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়। রাগের কারণে সৃষ্টি হয় ভুল বোঝাবুঝি, ঝগড়া-বিবাদ, এমনকি সম্পর্কও ছিন্ন হয়ে যায়।

চিকিৎসাবিজ্ঞানী বার্ট উচিনো বলেন, সহধর্মিণীর সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়টি মৃত্যুর সূচক হিসেবেও কাজ করে। বিশেষ করে হূদরোগের ক্ষেত্রে তো বটেই। গবেষকরা বয়স্ক ১৩৬ দম্পতির আচরণ পরীক্ষা করে দেখেছেন- বিবাহিত জীবনে তারা কতটা নিজেদের প্রতি সহায়ক ছিলেন, কতটা ঝগড়ায় লিপ্ত ছিলেন। পর্যালোচনা করে দেখা হয়েছে এসব দম্পতি একে অপরকে কতটা পরামর্শ দিয়েছেন। তাতে দেখা গেছে, ৩০ ভাগ দম্পতির সম্পর্ক ছিল ইতিবাচক আর ৭০ ভাগেরই অভিজ্ঞতা তিক্ততায় পরিপূর্ণ- যা বিষণ্নতারই নামান্তর। সিটি স্ক্যান করে দেখা হয়, পারস্পরিক সম্পর্কের কারণে তাদের হূদযন্ত্রে রক্ত জমাট বাঁধার পরিমাণ কতটা। প্রমাণ পাওয়া গেছে, যেসব দম্পতি অধিক মাত্রায় ঝগড়ায় লিপ্ত ছিল তাদের হূদযন্ত্রে রক্ত জমাটের পরিমাণও বেশি। এসব দম্পতি গড়ে ৩৬ বছর সংসার করেছে। চিকিৎসকরা তাই এসব দম্পতিকে পারস্পরিক আচরণের প্রতি আরো যত্নবান হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

উথা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল বিজ্ঞানী গবেষণায় পেয়েছেন, ঝগড়ার কারণে যেসব দম্পতি বিষণ্ন থাকে তাদের হূদযন্ত্রে রক্ত জমাট বাঁধার শঙ্কা বাড়ে অধিক হারে- যা মৃত্যুর খুব কাছাকাছি পৌঁছে যাওয়ার মতো পরিস্থিতির সৃষ্টি করে। চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা বলছেন, স্ত্রী বা পার্টনারের সঙ্গে ঝগড়া করলে তা আপনার মনকে শুধু বিষণ্নই করে না, আপনার হূদযন্ত্রকেও দুর্বল করে তোলে। অর্থাৎ আপনি ঝগড়ায় অভ্যস্ত হয়ে উঠছেন মানে ক্রমশ হূদরোগের দিকেও অগ্রসর হচ্ছেন।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads