• বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads

আইপিএল

তারপরও ম্যাচ সেরা নন সাকিব!

  • স্পোর্টস ডেস্ক
  • প্রকাশিত ০৯ মে ২০১৮

আইপিএলে এর আগেও এমন হয়েছে বাংলাদেশের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের বেলায়। দলের জয়ে সেরা ভূমিকা রাখার পরও ‘ম্যান অব দ্য ম্যাচ’ পুরস্কার পাননি তিনি। এবারো তাই হলো। সোমবার রাতে ব্যাটে-বলে অসাধারণ নৈপুণ্য দেখিয়ে তিনি সানরাইজার্স হায়দরাবাদের জয় এনে দিলেন বিরাট কোহলির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর বিপক্ষে। কিন্তু ম্যাচসেরা হলেন না। প্রথমে ব্যাট হাতে দলের খুব বাজে সময়ে ৩২ বলে ৩৫ রান করেন। পরে বল হাতে পার্থিব প্যাটেল ও বিরাট কোহলির মূল্যবান উইকেট লাভ করেন।

যাই হোক, নাটকীয় ম্যাচে হায়দরাবাদের কাছে ৫ রানে হেরে চলতি আইপিএল থেকে প্রায় বিদায় নিল বেঙ্গালুরু। প্রথমে ব্যাট করে হায়দরাবাদ অলআউট হয় ১৪৬ রানে। জবাবে বেঙ্গলুরু করে ৬ উইকেটে ১৪১ রান।

এই ম্যাচে হারার ফলে ১০ ম্যাচে বেঙ্গালুরুর পয়েন্ট দাঁড়াল ৬। শেষ চারটি ম্যাচে জিতলেও বেঙ্গালুরু ১৪ পয়েন্টের বেশি তুলতে পারবে না। ফলে সরকারিভাবে না হলেও কোহলিদের কার্যত বিদায় ঘটে গেল বলেই দেওয়া যায়। অন্যদিকে হায়দরাবাদ ১০ ম্যাচে ১৬ পয়েন্ট তুলে প্লে-অফ প্রায় নিশ্চিত করে ফেলেছে।

চলতি আইপিএলে অবিশ্বাস্য রকম বল করছেন হায়দরাবাদের বোলাররা। তাদের দুই স্পিনার রশিদ খান, সাকিব এবং তিন পেসার ভুবনেশ্বর, সিদ্ধার্থ কল ও সন্দীপ শর্মার আক্রমণের সামনে আটকে যাচ্ছেন বিপক্ষ ব্যাটসম্যানরা। এবার সাকিব নিলেন দুই উইকেট। শেষ ওভারে বেঙ্গালুরুর দরকার ছিল ১২ রান। কিন্তু ভুবনেশ্বরের নিখুঁত বোলিংয়ে মাত্র ৬ রান করে  বেঙ্গালুরু।

হায়দরাবাদের মন্থর পিচে ব্যাটসম্যানদের রান তুলতে সমস্যা হয়। তার মধ্যে উইলিয়ামসন করলেন ৩৯ বলে ৫৬ রান। ব্যাট করতে নেমে কোহলিও ভালো শুরু করেছিলেন। কিন্তু ৩০ বলে ৩৯ করে সাকিবের বলে ইউসুফ পাঠানের ধরা দুর্দান্ত ক্যাচে ফিরে যান তিনি। এর পরই রশিদের বলে বোল্ড হন ডি ভিলিয়ার্স। ম্যাচ ওখান থেকেই ঘুরে যায়।

এর আগে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে হায়দরাবাদের ব্যাটসম্যানরা শুরু থেকেই চাপে পড়েন। দুই ওপেনার হেলস (৫) ও ধাওয়ান (১৩) দ্রুত আউট হন। বরাবরের মতো হায়দরাবাদ ইনিংসকে টানেন সেই অধিনায়ক উইলিয়ামসন। তাকে দারুণভাবে সঙ্গ দেন সাকিব।

নতুন রেকর্ড

বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে বলা হয় বাংলাদেশের ক্রিকেটের রেকর্ডের রাজা। এই অলরাউন্ডার নতুন একটি রেকর্ড গড়লেন। ভারতের আইপিএলে তিনিই প্রথম বাঁ-হাতি বিদেশি স্পিনার, যিনি ৪০০টি ডটবল দিয়েছেন। সাকিবের আইপিএল যাত্রা শুরু হয়েছিল কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে। দীর্ঘ সাত বছর সেখানে খেলার পর চলতি আসরে সানরাইজার্স হায়দরাবাদে যোগ দেন তিনি। নতুন দলের প্রতি ম্যাচেই খেলছেন তিনি। বল হাতে ৩৬ রানে ২ উইকেট নিয়ে দলের জয়ে রাখেন অসাধারণ ভূমিকা। বল হাতে দুই উইকেট নেওয়ার পাশাপাশি ৭টি ডট দিয়েছেন তিনি। সপ্তম ডট দিয়েই আইপিএলে ৪০০ ডটের রেকর্ড গড়েছেন তিনি। ক্যারিয়ারে বল হাতেই বেশি উজ্জ্বল সাকিব। রান খরচের দিক দিয়েও তার তুলনা মেলা ভার। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে তার ইকোনমি রেট ৬.৭৮, বিভিন্ন দেশের ঘরোয়া টি-টোয়েন্টিতে ইকোনমি রেট ৬.৭৯।

অনেকেই হতাশ

আইপিএলে অসাধারণ নৈপুণ্য দেখানোর পরও সাকিব আল হাসান ম্যাচসেরার পুরস্কার না পাওয়ায় হতাশ হয়েছেন বাংলাদেশের অনেকেই। গতকাল সারাদিন ক্রিকেটমহলে এ নিয়ে কঠোর সমালোচনা হয়। ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেক বর্তমান ও ক্রিকেট খেলোয়াড়। পেসার আবু হায়দার ফেসবুকে প্রশ্ন করেছেন, ‘আবারো! সাকিব ভাই গুরুত্বপূর্ণ ৩৫ রান করলেন, দুটি ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ উইকেট নিলেন। তবুও কেন কোনো পুরস্কার পেলেন না? কেন তিনি ম্যান অব দ্য ম্যাচ নন!’ ব্যাটসম্যান মোসাদ্দেক হোসেন লিখেছেন, ‘কিছু বলার নেই, ভীষণ হতাশ।’ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ধারাভাষ্যকার বাংলাদেশের সাবেক ক্রিকেটার আতহার আলী খানও বেশ অবাক হয়েছেন আইপিএলে সাকিবের হাতে একবারও ম্যাচসেরার পুরস্কার না দেখে।

প্রশংসায় লক্ষণ

সাকিব আল হাসানের অলরাউন্ড নৈপুণ্যে রয়াল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর বিরুদ্ধে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ জয় পেয়েছে ৫ রানে। ম্যাচ শেষে হায়দরাবাদের মেন্টর ভিভিএস লক্ষণ সাকিবের প্রশংসায় হন পঞ্চমুখ। তিনি বলেন, হায়দরাবাদের বোলারদের মধ্যে সাকিবই সবচেয়ে আন্ডাররেটেড। লক্ষণ বলেন, ‘সাকিব প্রায়ই দুটি করে উইকেট নিচ্ছে, রান চেক দিচ্ছে। সে অনেক ঠান্ডা মেজাজের। আমি মনে করি আমাদের বোলারদের মধ্যে সাকিবই সবচেয়ে আন্ডাররেটেড।’ লক্ষণ আরো বলেন, ‘আমাদের পাঁচজনই অ্যাটাকিং বোলার। এটাই আমাদের প্লাস পয়েন্ট।’

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads