• শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৫
ads
এবার প্রত্যন্ত অঞ্চলেও যাবে ইন্টারনেট

স্বপ্নের স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১-এর মাধ্যমে দুর্গম অঞ্চলগুলো ও শিগগিরই অনলাইন সেবার আওতায় আসবে

সংরক্ষিত ছবি

তথ্যপ্রযুক্তি

এবার প্রত্যন্ত অঞ্চলেও যাবে ইন্টারনেট

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ০২ জুন ২০১৮

ইন্টারনেট সেবার বাইরে রয়েছে দেশের ৭৭২টি ইউনিয়নের লাখো মানুষ। তবে স্বপ্নের স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১-এর মাধ্যমে হাওর, বিল, প্রত্যন্ত ও দুর্গম পাহাড়ি অঞ্চল শিগগিরই অনলাইন সেবার আওতায় আসবে। আর এ লক্ষ্যে প্রাথমিক কাজ শুরু হয়েছে বলে জানালেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

মন্ত্রী বাংলাদেশের খবরকে জানান, বিটিআরসির সামাজিক দায়বদ্ধতা তহবিলে (এসওএফ) ১ হাজার ২০০ কোটি টাকার ওপরে জমা রয়েছে। এই অর্থ দিয়ে ৭৭২টি ইউনিয়নে ইন্টারনেট পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

তিনি জানান, এসওএফের আগামী বৈঠকে ফান্ডের টাকা খরচের বিষয়টি চূড়ান্ত হতে পারে।

মন্ত্রী বলেন, আমার প্রথম লক্ষ্য বাড়ি বাড়ি ইন্টারনেট পৌঁছানো। কিন্তু দেখেছি, এখনো ৭৭২টি ইউনিয়ন কানেক্টিভিটির বাইরে। এর মধ্যে আবার ২২৬টি অতিদুর্গম এলাকায়। এতে কয়েকটি ছিটমহলও রয়েছে। এসব এলাকায় বঙ্গবন্ধু-১-এর মাধ্যমে ইন্টারনেট পৌঁছানো হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, সারা দেশের গ্রাহকরা যে দামে ইন্টারনেট সেবা পান, ওইসব এলাকার মানুষও সেই দামেই সেবা পাবেন। প্রয়োজনে সরকার ভর্তুকি দেবে।

তিনি বলেন, আমরা ইউনিয়ন পর্যন্ত পৌঁছতে পারলে ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোকে বলব, তোমরা এবার বাড়ি বাড়ি ইন্টারনেট পৌঁছে দাও। আবার সব বাড়িতে পৌঁছানো না গেলে স্থানীয় স্কুল, কলেজ, বাজারে পৌঁছানো হবে।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, দেশের বিভিন্ন দ্বীপ এলাকা, হাওর, ছিটমহল, প্রত্যন্ত ও দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় পৌঁছাতে পারলে ইন্টারনেট নির্ভর শিক্ষা দেওয়া হবে ছাত্রছাত্রীদের। এ ছাড়া টেলিমেডিসিন সেবা চালুর মাধ্যমে মা ও শিশুমৃত্যুর হার কমানো যাবে। জটিল রোগীর চিকিৎসা গ্রামে বসেই করা সম্ভব হবে।

মন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন, এই সেবা চালু হলে দ্বীপের মাছ ও ফসলের ন্যায্যমূল্য, হাওর এলাকায় মা ও স্কুলের শিক্ষার্থীদের জন্য অনলাইন স্কুল বা দূরশিক্ষণ অনুষ্ঠান, ছিটমহলের পিছিয়ে পড়া শিক্ষার্থী ও সাধারণ মানুষকে প্রযুক্তির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়া সম্ভব হবে। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি নিয়ে আমরা যা যা ভাবি তার সবকিছুই ইন্টারনেট দিয়ে করা হবে।

এদিকে গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুসারে, সার্ক স্যাটেলাইট (সাউথ এশিয়ান স্যাটেলাইট) বাংলাদেশেরও ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে। বিভিন্ন দ্বীপ, ছিটমহল, দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় সার্ক স্যাটেলাইট ব্যবহার করে ইন্টারনেট পৌঁছানো যাবে। আর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটকে তখন ব্যাকআপ হিসেবে রাখা হবে।

প্রসঙ্গত, এরই মধ্যে দেশের ১ হাজার ২০০ ইউনিয়নে উচ্চগতির ইন্টারনেট সেবা পৌঁছে দিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ কোম্পানি লিমিটেড (বিটিসিএল)। এ ছাড়া ইনফো সরকার-৩ প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের ২ হাজার ৬০০ ইউনিয়নে কানেক্টিভিটি দেওয়া হয়েছে। আর গত ১১ মে বঙ্গবন্ধু-১ উৎক্ষেপণের পর আশা করা হচ্ছে দেশের শতভাগ এলাকাকেই ইন্টারনেট সেবার আওতায় আনা সম্ভব হবে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads