• বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads

মতামত

গ্রামীণ বিনিয়োগে গুরুত্ব দিতে হবে

  • প্রকাশিত ১৯ এপ্রিল ২০১৮

শাহ এ সারোয়ার

অর্থনীতির সব প্রবৃদ্ধি এখন ঊর্ধ্বমুখী। বড় বড় প্রকল্পে বিনিয়োগের কারণে দেশে আর্থিক কর্মকাণ্ডের ব্যাপ্তিও বেড়েছে। ফলে বর্তমানে ব্যাংকগুলোর বৃহৎ আকারে বিনিয়োগের কর্মপরিকল্পনার প্রস্তুতিপর্ব শেষ। এখন বিনিয়োগের চূড়ান্ত সুবর্ণ সময় রয়েছে। দেশের সার্বিক পরিস্থিতিও অনুকূলে। বিরাট সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। এখন বিনিয়োগের ক্ষেত্র হিসেবে গ্রামীণ এলাকায় বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে। আমাদের ব্যাংক গ্রামীণ আর্থিক কর্মকাণ্ডে বড় ভূমিকা রাখছে। বাংলাদেশের প্রথম প্রজন্মের অন্যতম বেসরকারি ব্যাংকগুলো ভূমিকা রেখে চলেছে। এ সময় দেশে ভালো কিছু উদ্যোক্তা তৈরি করেছে। বিশেষ করে গার্মেন্ট খাতে। এখন ইনক্লুসিভ ব্যাংকিং কার্যক্রমের দিকে এগোনো হচ্ছে। গ্রাহকদের জন্য তিনটি প্রোডাক্ট আনা হয়েছে। এর মধ্যে হোমলোন, আমার অ্যাকাউন্ট, ওয়ান স্টপ সার্ভিস। আমরাই প্রথম সিঙ্গেল ডিজিট হোমলোন সুবিধা নিয়ে এসেছি। এই লোনের প্রতি গ্রাহকদের চাহিদাও অনেক। আমার অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে গ্রাহকদের আমানত, ঋণ, চলতি হিসাবের সব সুবিধা দেওয়া হচ্ছে। ওয়ান স্টপ সার্ভিসে গ্রাহকরা সর্বোচ্চ সুবিধা নিতে পারছেন। একটি অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে বাসায় বসে ঋণের আবেদন, অর্থ ট্রান্সফার, মোবাইল ব্যাংকিং করা সম্ভব হবে। ফলে কোর ব্যাংকিংয়ের ক্ষেত্রে মানুষের কাছে আরো সুবিধাজনক ব্যাংকিং নিয়ে আসা হচ্ছে।

ব্যাংকগুলোর কেবল করপোরেট কালচার বিবেচনায় উচিত নয়। ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে সক্ষমতা বিবেচনায় নেওয়া হবে এটা তো স্বাভাবিক। এ ছাড়া গ্রামীণ এলাকায় এখন বেশি জোর দেওয়া হয়েছে। আমরা ক্ষুদ্র, কৃষি, এসএমই খাতে বৃহৎ আকারে ঋণ দিচ্ছি। এমনকি মাইক্রোফিন্যান্স পদ্ধতিতেও ঋণ দেওয়া হচ্ছে। কয়েক বছর ধরেই এটা বৃদ্ধি পেয়েছে। চলতি বছর ২০০ কোটি টাকার ওপর ঋণ দেওয়া হয়েছে এ খাতে। যেটা আগের বছর ছিল ১৭৫ কোটি টাকার নিচে। এখানে প্রায় ১০ থেকে ১২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে। হোম লোনের ক্ষেত্রে অনেক বড় বিনিয়োগ হয়েছে। ২০১৪ সালের আগে আমাদের মোট ঋণ ছিল ৩০০ কোটি টাকা। ২০১৬ সালে এটা বেড়ে হয়েছে ১২০০ কোটি টাকা। এ ছাড়া টার্ম লোন, ইন্ডাস্ট্রি লোনের ক্ষেত্রেও আমরা সমান গুরুত্ব দিয়েছি। ফলে আমাদের মুনাফাও অনেক বেড়েছে। যেকোনো এলাকায় ঋণ দিতে হলে ওই এলাকার অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড বিবেচনায় নিতে হয়। এখন ব্যাংকগুলোর আমানত সংগ্রহ ও বিনিয়োগ ক্ষেত্র সমানভাবে বিবেচনায় নেওয়া কঠিন। ঢাকা, চট্টগ্রামে যে পরিমাণ বাণিজ্যিক কর্মকাণ্ড রয়েছে, সেটা দেশের যেকোনো শহরের তুলনায় অনেক বেশি। ফলে বিনিয়োগেও কিছুটা পার্থক্য থাকবে। তবে আমাদের দেশের রাজনীতিবিদ এবং অর্থনীতিবিদরা গ্রামীণ অর্থায়নের বিষয়ে অত্যন্ত সচেতন।

অভ্যন্তরীণ ব্যবসা পরিকল্পনায় প্রত্যেকের একটি নিজস্ব কৌশল থাকে। একটি প্রতিষ্ঠানের প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামোর ওপর নির্ভর করে তারা কীভাবে এগোবে। আগে হোক পরে হোক তারা বিভিন্ন পদ্ধতি মেনে ব্যবসায় বিনিয়োগ করে। ব্যাংকগুলোর মধ্যেও এমনটি আছে। বিভিন্ন ব্যাংকের মধ্যে যে প্রতিযোগিতা, সেটা স্বাভাবিক প্রবণতা। এখানে কোনো অসুস্থ পরিবেশ আছে বলে আমরা মনে করি না। আর এই প্রতিযোগিতা থাকবেই। অনেক ব্যাংকের কাছে অলস তারল্য আছে। বর্তমানে পুরো ব্যাংকিং খাতে যে তারল্য রয়েছে সেটা সহনশীল। বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ম অনুযায়ী আমানতের ৮১ থেকে ৮৫ শতাংশ বিনিয়োগ হয়। সেখানে হয়তো কিছু ব্যাংকের কম থাকতে পারে। ফলে এটা বড় কোনো তারল্য রয়েছে বলে মনে হয় না।

যেকোনো ব্যাংকের সঙ্কট থাকলে সেটা পুরো খাতেই প্রভাব পড়ে। রাষ্ট্রায়ত্ত বা বেসরকারি বলে কথা নেই। বড় কোনো ঘটনা হলে সেটা অবশ্য অন্যান্য খাতে প্রভাব পড়বেই। এ থেকে বেরিয়ে আসতে হলে যারা পরিচালনা করেন বা ম্যানেজমেন্টে আছেন, তাদের সতর্ক থাকা উচিত। মন্দ ঋণের রিটার্ন যদি শূন্য হয়, সেটা ভালো ঋণের রিটার্ন দিয়ে সামাল দিতে হয়। তাই ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে সবাইকে আরো সতর্ক থাকতে হবে।

লেখক : ব্যাংকার

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads