• বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫
ads

অ্যাথলেটিকস

ঘুম হারাম

  • স্পোর্টস ডেস্ক
  • প্রকাশিত ২৯ এপ্রিল ২০১৮

পর পর দুই অলিম্পিকেই ৮০০ মিটারে সোনা জিতেছেন তিনি। একই ইভেন্টে তার সোনা রয়েছে গত বছর লন্ডনে অনুষ্ঠিত বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপেও। গোল্ড কোস্টে সদ্য সমাপ্ত কমনওয়েলথ গেমসেও ৮০০ ও ১৫০০ মিটারে সোনা জিতেছেন দক্ষিণ আফ্রিকার কাস্তের সেমেনিয়া। কিন্তু দেশে ফিরেই আন্তর্জাতিক অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশনের (আইএএএফ) নতুন নিয়মে রাতের ঘুম হারাম গেছে তার, যা চালু হতে চলেছে চলতি বছরের পহেলা নভেম্বর থেকে।

কী বলা হয়েছে এই নতুন নিয়মে? ২৫ এপ্রিল লুজানে সভা ছিল আন্তর্জাতিক অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশনের। সেখানেই অ্যাথলেটিক্সের দুনিয়ায় পুরুষ- মহিলা বিতর্ক বন্ধ করতে নয়া নিয়ম চালুর সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এর আগে নিয়ম চালু হয়েছিল, কোনো মহিলা অ্যাথলিটের শরীরে পুরুষ হরমোন টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বেশি থাকলেও তাকে মহিলা অ্যাথলিট হিসেবেই গণ্য করা হতে পারে। কিন্তু নতুন নিয়মে বলা হয়েছে, যদি কোনো মহিলা অ্যাথলিটের প্রতিলিটার রক্তে ৫ ন্যানোমোলের বেশি টেস্টোস্টেরন থাকে তাহলে তাকে ৪০০, ৮০০ ও ১৫০০ মিটারে নামতে দেওয়া হবে না। তবে ১০০ ও ২০০ মিটারসহ হাইজাম্প, লংজাম্প, শটপুট ও জ্যাভলিন থ্রোর মতো বিভাগে নামতে পারবেন তারা। ৪০০, ৮০০ ও ১৫০০ মিটারে নামতে হলে সংশ্লিষ্ট অ্যাথলিটকে দীর্ঘ ছয় মাস চিকিৎসা করিয়ে টেস্টোস্টেরনের মাত্রা কমাতে হবে। তা না হলে তাকে প্রতিযোগিতায় মহিলাদের বদলে নামতে হবে পুরুষদের সঙ্গে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads