• সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads
পাসপোর্ট ভেরিফিকেশনের নামে প্রতারণা, গ্রেফতার তিন

সংগৃহীত ছবি

অপরাধ

পাসপোর্ট ভেরিফিকেশনের নামে প্রতারণা, গ্রেফতার তিন

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮

পাসপোর্ট ভেরিফিকেশনের কথা বলে আবেদনকারীদের থেকে টাকা নেওয়া প্রতারকচক্রের তিন সদস্যকে গ্রেফতার করছে পুলিশ। পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চের (এসবি) ইন্সপেক্টর পরিচয়ে তারা এ প্রতারণা করছিলেন। গত বৃহস্পতিবার আগারগাঁও পাসপোর্ট অফিসের পাশে একটি স্টুডিও ও ফটোকপির দোকানের সামনে থেকে পিবিআই ঢাকা মেট্রোর একটি বিশেষ দল তাদের গ্রেফতার করে। গতকাল শুক্রবার পিবিআইর এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। পিবিআই ঢাকা মেট্রোর এসআই এমদাদুল হক বাদী হয়ে এই চক্রের বিরুদ্ধে শেরেবাংলা নগর থানায় ইতোমধ্যে মামলাও করেছেন।

পিআইবি জানিয়েছে, পাসপোর্ট অফিসের আশপাশের বিভিন্ন ফটোকপির দোকান ও দালালদের মাধ্যমে প্রতি আবেদন ফরমের কপি ২০০ থেকে ৩০০ টাকার বিনিময়ে বিক্রি করে এ চক্র। পরে পাসপোর্ট ভেরিফিকেশনের  জন্য দেড় থেকে ২ হাজার টাকা প্রতি অবেদনকারী থেকে নিচ্ছে। টাকার অঙ্ক বেশি না হওয়ায় আবেদনকারীরা অনায়াসেই বিকাশে টাকা পাঠিয়ে দেয়। প্রতিদিন দালালরা ৩০ থেকে ৪০ জন আবেদনকারীকে ফোন করে শতকরা ৬০ জন থেকে টাকা নেয়। এ অভিযোগ পেয়ে পিবিআইবির একটি বিশেষ দল প্রতারক ৭ সদস্যের চক্রকে ধরতে মাঠে নামে। মোবাইল ফোন ট্র্যাক করে তারা সংঘবদ্ধ এ পাসপোর্ট প্রতারকচক্রের তিন সদস্যকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। গ্রেফতার ব্যক্তিরা  হলো মো. রাকিব মিয়া, মো. কামাল হোসেন ও  মো. সজীব।

পুলিশ বলছে, মো. মহসীন আলম নামে এক ব্যক্তি গত ২০ আগস্ট আগারগাঁও পাসপোর্ট অফিসে তার মা ও স্ত্রীর পাসপোর্টের জন্য আবেদন করেন। এর পাঁচ দিন পর এসবি পরিচয় দিয়ে ফোন করে বলা হয়, আমি এসবি অফিস থেকে ইন্সপেক্টর রফিক বলছি। আপনি পাসপোর্টের জন্য আবেদন করেছেন। আপনার ফাইল আমার কাছে আছে। এরপর মহসীনের কাছে ওই ব্যক্তি তিন হাজার টাকা দাবি করেন। তিনি তাৎক্ষণিকভাবে দেড় হাজার টাকা বিকাশ করেন। ঠিক পরদিনই পাসপোর্টের তদন্তের জন্য মালিবাগ এসবি অফিস থেকে তাকে ডাকা হলে তিনি বুঝতে পারেন, এর আগে পরিচায়দানকারী এসবির ভুয়া সদস্য ছিলেন। একই চক্রের ফাঁদে পড়েছিলেন একটি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক। তার কাছেও পাসপোর্ট তদন্তের জন্য দুই হাজার টাকা দাবি করা হয়। তিনি এসবি পরিচয়দানকারী সদস্যকে টাকা পাঠিয়ে দেন। পরে এসবি অফিসে গিয়ে বুঝতে পারেন প্রতারিত হয়েছেন।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads