• মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ২৯ কার্তিক ১৪২৫
ads
লুসাইয়ের সহকারী গ্রেফতার গঞ্জেরাজের বাস জব্দ

সংগৃহীত ছবি

অপরাধ

বাসচাপা ও ধাক্কায় হত্যা

লুসাইয়ের সহকারী গ্রেফতার গঞ্জেরাজের বাস জব্দ

  • প্রকাশিত ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

চট্টগ্রাম ব্যুরো ও কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

চট্টগ্রামে যাত্রীকে চলন্ত বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে হত্যার ঘটনায় চালকের সহকারী মো. মানিক সরকারকে লক্ষ্মীপুর থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপরদিকে কুষ্টিয়ার চৌড়হাস মোড়ে শিশু আকিফা ও তার মা রিনা খাতুনকে ধাক্কা দেওয়া গঞ্জেরাজ পরিবহনের ‘ফয়সাল’ বাসটি ফরিদপুর থেকে জব্দ করেছে পুলিশ।

গত শুক্রবার রাত ৪টার দিকে লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার নিজ বাড়ি থেকে মানিককে গ্রেফতার করেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) সদস্যরা। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে হাজিরহাট হাসমত হাওলাদারের বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পিবিআই চট্টগ্রাম মহানগর এলাকার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মাঈন উদ্দিন বলেন, ‘মানিককে চট্টগ্রামে আনা হচ্ছে। তার বিরুদ্ধে হত্যা মামলা হয়েছে। তাই তাকে জিজ্ঞাসাবাদ প্রয়োজন।’

গত ২৭ আগস্ট চট্টগ্রাম শহরতলির সিটি গেট এলাকায় চলন্ত বাস থেকে রেজাউল করিমকে (৩৫) ফেলে দেওয়া হয়। গ্ল্যাক্সো কার্যালয়ের সামনে লুসাই পরিবহন লিমিটেড নামের একটি বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়ার পরমুহূর্তের মধ্যেই ওই বাসের চাকায় পিষ্ট হন তিনি। বাসের সহকারী মানিকের সঙ্গে বাকবিতণ্ডার সূত্র ধরে রেজাউলকে চলন্ত বাস থেকে ফেলে দেওয়া হয় বলে সহযাত্রী ও স্বজনদের অভিযোগ। রেজাউলকে হত্যার ঘটনায় চট্টগ্রাম নগরের আকবর শাহ থানায় পরদিন ২৮ আগস্ট দণ্ডবিধির ৩০২, ৩২৫ ও ৩৪ ধারায় মামলা করেন নিহতের মামা আহমেদুর রহমান।

চট্টগ্রাম নগরের চার নম্বর যাত্রাপথের লুসাই পরিবহন লিমিটেড নামের বাসটির মালিক মো. শাহাবুদ্দিন। বাসের সহকারী মো. মানিক সরকার নগরের কৈবল্যধাম আবাসিক এলাকার ফিরোজ শাহ কলোনিতে বাস করতেন। যাত্রীকে বাস থেকে ফেলে দেওয়ার পর তিনি এবং চালক গা ঢাকা দেন। এ ঘটনায় চালক এখনো গ্রেফতার হয়নি।

এদিকে কুষ্টিয়ায় মা-মেয়েকে ধাক্কার ফলে শিশু মৃত্যুর ঘটনায় গঞ্জেরাজ পরিবহনের ঘাতক বাসটি জব্দ করেছে পুলিশ। গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টায় ফরিদপুরের নতুন বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে বাসটি জব্দ করা হয়। তবে মামলার তিন আসামিকে এখনো গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। গতকাল শনিবার দুপুরে কুষ্টিয়া পুলিশ লাইনে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে বাস জব্দের বিষয়টি জানান পুলিশ সুপার এসএম মেহেদী হাসান। ইতোমধ্যে বাসটির নাম মুছে ফেলার চেষ্টা ও নম্বরপ্লেট তুলে ফেলা হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।

গত ২৮ আগস্ট দুপুর পৌনে ১২টার দিকে রাজশাহী থেকে ফরিদপুরগামী গঞ্জেরাজ পরিবহনের একটি বাস চৌড়হাস মোড়ের কাউন্টারে এসে থামে। ঠিক সে সময় থেমে থাকা বাসের সামনে দিয়ে এক বছরের শিশুকন্যা আকিফাকে কোলে নিয়ে রাস্তা পার হচ্ছিলেন রিনা বেগম। হঠাৎ কোনো হর্ন ছাড়াই চালক খোকন বাসটি চালিয়ে রিনাকে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়। এতে মায়ের কোল থেকে রাস্তার ওপর ছিটকে পড়ে আহত হয় আকিফা। গত বৃহস্পতিবার ভোর ৫টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আকিফার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় ওইদিন রাতেই কুষ্টিয়া মডেল থানায় মামলা করেন নিহত শিশুর বাবা হারুন-উর-রশিদ। মামলায় বাসচালক, সুপারভাইজার ও বাসমালিককে আসামি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads