• সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads

বাংলাদেশ পরিযায়ী পাখির প্রিয়স্থান

সংগৃহীত ছবি

ফিচার

বাংলাদেশ পরিযায়ী পাখির প্রিয়স্থান

  • ফিচার ডেস্ক
  • প্রকাশিত ১২ মে ২০১৮

বাংলাদেশের জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস, হাওর ও জলাশয় অঞ্চল অতিথি পাখিদের বিশেষ আবাস। শীতের সময়ে অতিথি পাখিতে মুখর থাকে এসব এলাকা। যদিও সাম্প্রতিক সময়ে কমছে পরিযায়ী পাখি আসার হার। পরিযায়ী পাখি শিকার, নিধন ও পাচারের কারণেও পাখির আগমন কমছে।

টাঙ্গুয়ার হাওর : প্রতিবছর শীত মৌসুমে টাঙ্গুয়ার হাওরে প্রায় ২০০ প্রজাতির পরিযায়ী পাখির সমাগম ঘটে। টাঙ্গুয়ার হাওরের প্রধান দুটি পাখির অভয়ারণ্য হলো লেউচ্ছামারা ও বেরবেড়িয়ার বিল। এ ছাড়াও রৌয়ার বিল, গজারিয়ার বিল, আলমের ডোয়ার, ফইল্লার বিল, রূপাভুই বিলে পাখিদের আনাগোনা বেশি থাকে।

হাকালুকি হাওর : এশিয়ার অন্যতম বৃহত্তম মিঠাপানির জলাভূমি এবং বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় হাকালুকি হাওরের কালাপানি, বাইয়াগজুয়া, কৈয়ারকোনা বিলে শীতে প্রচুর অতিথি পাখি দেখা যায়।

বাইক্কা বিল : মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলার হাইল হাওরের পূর্ব পাশের প্রায় একশ হেক্টর আয়তনের জলাভূমি বাইক্কা বিল শীতে প্রায় ১৬০ প্রজাতির পাখির অভয়াশ্রম হয়ে ওঠে। পাখিদের ভালোভাবে দেখার জন্য এখানে একটি পর্যবেক্ষণ টাওয়ারও আছে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় : শীতের শুরু থেকেই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস পরিযায়ী পাখির কলকাকলিতে মুখর হয়ে ওঠে। গাছপালায় ঢাকা সবুজ এই ক্যাম্পাসের জলাশয়গুলোকে এ সময়ে নিরাপদ আশ্রয়স্থল হিসেবে বেছে নেয় পাখিরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে ও পেছনের দুটি জলাশয়, জাহানারা ইমাম হল, প্রীতিলতা হল এবং আল বেরুনি হল সংলগ্ন জলাশয়ে পাখিদের আনাগোনা বেশি থাকে।

দমার চর : নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার নিঝুম দ্বীপের পাশেই দমার চর। বঙ্গোপসাগরের কোলে অবস্থিত এ চরেও শীতে বসে পাখিদের মেলা। শীত মৌসুমে দমার চরে নানান পাখির সঙ্গে প্রচুর দেখা যায় দেশি গাঙচষা।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জে মহানন্দা নদীর বিভিন্ন চরে শীত মৌসুমে আসে নানান অতিথি পাখি। চাঁপাইনবাবগঞ্জের এসব চরাঞ্চলে বিরল অতিথি পাখিদের দেখা মিলছে সাম্প্রতিক সময়গুলোতে।

রাজশাহীর পদ্মার চর : রাজশাহী শহরের পাশ দিয়েই বয়ে গেছে পদ্মা নদী। এ নদীর চরেও শীত মৌসুমে আসে ঝাঁকে ঝাঁকে অতিথি পাখি। বাংলাদেশের পাখিপ্রেমীদের এখন নতুন গন্তব্য এই পদ্মার চর। গত কয়েক বছর ধরে এ নদীর চরে অতি বিরল সারস পাখি ও কালো মানিকজোড়সহ অনেক বিরল প্রজাতির পাখির দেখা মিলছে।

মুহুরী সেচ প্রকল্প : ফেনী জেলার সোনাগাজী ও চট্টগ্রামের মিরসরাই সীমান্তে ফেনী নদীর ওপর মুহুরী সেচ প্রকল্পটি অবস্থিত। শীতে এ প্রকল্প এলাকায় আসে ঝাঁকে ঝাঁকে অতিথি পাখি।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads