• বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads

জীবন ধারা

স্থুলতা থেকে বাঁচার কর্মশালা!

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ২৮ মার্চ ২০১৮

কারও ওজন একশো কেজি ছাড়িয়েছে, কারও আবার একশো’র কাছাকাছি। গাঁটে গাঁটে ব্যথা তো আছেই, পাশাপাশি দেহে মেদ বাড়ার জন্য বাড়ছে হার্টের সমস্যাও। সম্প্রতি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৭৫ জন শিক্ষক, শিক্ষাকর্মী এবং পড়–য়ার মধ্যে জরিপ চালিয়ে স্থূলতার এমন অবস্থাই দেখা গেছে। তাই তাঁদের সচেতন করতে এবং সুস্থ জীবনে ফিরিয়ে আনতে এপ্রিলে কর্মশালার আয়োজন করতে যাচ্ছেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষিকা পৃথা ভট্টাচার্য ও কয়েকজন গবেষক।

ডায়েটিশিয়ানরা জানাচ্ছেন, প্রাত্যহিক জীবনে এখন ব্যস্ততা বেড়েছে। সেই পরিবর্তনের সঙ্গে তাল মেলাতে বাড়ছে অনিয়মিত খাদ্যাভ্যাস ও পুষ্টির নিয়ম না মেনে খাওয়া। এসবই ডেকে আনছে বিভিন্ন সমস্যা। কাজের চাপ তো আছেই, তার উপরে দেহে মেদ বাড়ার কারণে রক্তচাপ বাড়ছে হু হু করে। আর তাই হার্টের সমস্যায় কাবু হচ্ছেন তরুণ থেকে প্রবীণ। সুস্থতার প্রথম শর্তই হল স্থূলতা বর্জন। কিন্তু প্রতি পদে এই সমস্যা যেভাবে চেপে বসছে, তা থেকে মুক্তির উপায় খুঁজতেই এই কর্মশালা বলে জানিয়েছেন পৃথাদেবী।

ওই শিক্ষিকা জানান, স্থূলতা নিয়ে গবেষণা করছেন তিনি। তাঁর সঙ্গে আছেন একদল গবেষকও। তাঁরাই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষাকর্মী ও পড়–য়াদের মধ্যে সমীক্ষা চালিয়ে দেখেছেন, অন্তত ৫০ শতাংশ স্থূলতার শিকার। তাঁদের মধ্যে ৩০ শতাংশ আবার চরম ঝুঁকির পর্যায়ে রয়েছেন। এর ফলে ওই শিক্ষক-শিক্ষাকর্মী-পড়–ুয়াদের কর্মক্ষমতা যেমন কমে যাচ্ছে, তেমনই শারীরিক দিক থেকেও তাঁরা দুর্বল হয়ে পড়ছেন।

পৃথাদেবী জানাচ্ছেন, রোগ কমিয়ে কর্মক্ষমতা বাড়ানোর জন্য প্রথম প্রয়োজন সচেতন হওয়া। তাই কর্মশালার প্রথম পর্বে শিক্ষক, শিক্ষাকর্মী এবং পড়ুয়াদের দেওয়া হবে সচেতনতার পাঠ। দ্বিতীয় পর্যায়ে হবে রক্ত পরীক্ষা। তার রিপোর্ট দেখে পরামর্শ দেবেন চিকিৎসক।

ওই কর্মশালায় থাকবেন ডায়েটিশিয়ান এবং যোগাসনের প্রশিক্ষকেরাও। ডায়েটিশিয়ানরা শরীরের ওজন, রক্ত পরীক্ষার রিপোর্ট ও চিকিৎসকের পরামর্শ মতো খাদ্য তালিকা তৈরি করে দেবেন। আর বয়স এবং ওজন অনুযায়ী কী কী ব্যায়াম প্রয়োজন, তা বলে দেবেন যোগাসনের প্রশিক্ষক। পুরোটাই হবে বিনামূল্যে। জানা গিয়েছে, আগামী মাসে চার সপ্তাহে চার দিন এই কর্মশালা হবে বালিগঞ্জ সায়েন্স কলেজে।

পৃথাদেবী বলেন, ‘এক দিন কর্মশালা করলেই যে সকলে রোগা হয়ে যাবেন তেমন নয়। কিন্তু মোটা হওয়ার কারণে যে শরীরে নানা রোগ বাসা বাঁধতে পারে এবং এই স্থূলতা যে পরবর্তীকালে আরও সমস্যা ডেকে আনতে পারে, সেটাই তাঁদের বোঝানো হবে। গোটা প্রক্রিয়ায় সাহায্য করছেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।’

ডায়েটিশিয়ান রেশমী রায়চৌধুরী বলছেন, ‘এমন উদ্যোগ খুবই ভাল। আসলে সমস্ত রোগের মূলে স্থূলতা। ব্যথা, মানসিক চাপ, রক্তচাপ বাড়া তো আছেই, হৃদরোগ এবং ডায়াবিটিসের আশঙ্কাও অনেক বেড়ে যায় এর জন্য। তাই বিজ্ঞানসম্মত ভাবে খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তন করা উচিত।’

একই কথা বললেন আর জি কর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক অপূর্ব মুখোপাধ্যায়। তাঁর কথায়, ‘এটা অত্যন্ত ভাল উদ্যোগ। সাধারণ মানুষকে সচেতন করার প্রয়োজন রয়েছে। স্থূলতার কারণে ক্যানসারের আশঙ্কাও থাকে। ফাস্ট ফুড থেকে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে দূরে রাখার জন্য এমন কর্মশালা অবশ্যই প্রশংসার যোগ্য।’

 

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads