• রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ৯ কার্তিক ১৪২৭
আত্মবিশ্বাসী ডেনমার্ক ও ক্রোয়েশিয়া

কোয়ার্টার ফাইনালে উঠতে ক্রোয়েশিয়া দলের কঠিন অনুশীলন

ছবি : ইন্টারনেট

ফুটবল

আত্মবিশ্বাসী ডেনমার্ক ও ক্রোয়েশিয়া

  • স্পোর্টস ডেস্ক
  • প্রকাশিত ০১ জুলাই ২০১৮

বিশ্বকাপে ডেনমার্কের সর্বোচ্চ প্রাপ্তি বলতে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলা। ১৯৯৮ বিশ্বকাপে শেষ আটে লড়াই করেছিল তারা। ডেনমার্ক এবার ‘সি’ গ্রুপ থেকে দ্বিতীয় দল হিসেবে শেষ ষোলোতে জায়গা করে নিয়েছে। আজ নকআউট পর্বের লড়াইয়ে তাদের প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া। কোয়ার্টারে উঠতে পুরোপুরি প্রস্তুত ক্রোয়েশিয়া। ডেনমার্কের বিপক্ষে আজ শেষ ষোলোর লড়াইয়ে ক্রোয়েটদেরই সুস্পষ্ট ফেভারিট হিসেবে ধরা হচ্ছে। ডেনিশরাও অবশ্য বিশ্বকাপে এ পর্যন্ত তাদের বাজে ইমেজকে পেছনে ফেলে বিস্ময়কর কিছু করে দেখাতে পুরোপুরি প্রস্তুত। মোটকথা দু’দলই আত্মবিশ্বাসী। নিজনি নোভগ্রাদ স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত ১২টায় শুরু হবে দুই দলের এ ফুটবল দ্বৈরথ।

কাগজে-কলমে শক্তির বিচারে ক্রোয়েশিয়ার চেয়ে আট ধাপ এগিয়ে ডেনমার্ক। র্যাঙ্কিংয়ে তাদের অবস্থান ১২ নম্বরে। আর ক্রোয়েশিয়া ২০তম স্থানে। দুই দলের মুখোমুখিতেও কেউ কারো চেয়ে কম নয়। পাঁচবারের লড়াইয়ে দুই দলই দুটি করে ম্যাচে জয় পেয়েছে। আর একটি ম্যাচ হয়েছিল ড্র। তবে কাগজ-কলমের হিসাব যাই হোক না কেন, মাঠের লড়াই তো আসল পরীক্ষা। বিশ্বকাপের ইতিহাসও পক্ষে নেই ডেনমার্কের। চলতি আসরে ডেনমার্কের যাত্রাটা মোটেও সুখকর নয়। তিন ম্যাচের একটিতে মাত্র জয় পেয়েছে তারা। পেরুর বিরুদ্ধে ১-০ গোলের জয় দিয়ে যাত্রা শুরু করা দলটি পরের দুই ম্যাচে ড্র করে ৫ পয়েন্ট নিয়ে পেরু ও অস্ট্রেলিয়াকে পেছনে ফেলে দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলার ছাড়পত্র পায়। তবে ইতিহাস নয়, নিজেদের সেরাটা দিয়েই এবার ১৬ বছরের দুঃখ ঘোচাতে চায় ডেনমার্ক। ক্রোয়েশিয়ার বিরুদ্ধে জয় দিয়ে জায়গা করে নিতে চায় শেষ আটে।

যে স্টেডিয়ামে আজ ডেনমার্কের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নামবে ক্রোয়েশিয়া, সেই স্টেডিয়ামে গ্রুপ পর্বের ম্যাচে শক্তিশালী আর্জেন্টিনাকে ৩-০ গোলে বিধ্বস্ত করেছিল লুকা মডরিচের দল। ভেন্যুটি ক্রোয়াটদের জন্য পয়মন্তই বলা চলে। আজ ডেনিশদের পরাজিত করতে পারলে ২০ বছর পর আবারো কোয়ার্টার ফাইনাল খেলার স্বাদ পাবে দলটি। ১৯৯৮ সালে বিশ্বকাপে অভিষেক হওয়া ক্রোয়েশিয়া নিজেদের প্রথম আসরেই চমকে দিয়েছিল বিশ্বকে। সে আসরে সেমিফাইনাল পর্যন্ত উঠে এসেছিল। তবে ফাইনাল খেলা হয়নি। শেষ চারের লড়াইয়ে ফ্রান্সের কাছে ২-১ গোলে হারতে হয়েছিল তাদের। তবে স্থান নির্ধারণী ম্যাচে নেদারল্যান্ডসকে ২-১ গোলে পরাস্ত করে তৃতীয় হয় ক্রোয়েশিয়া। চলতি আসরেও নান্দনিক ফুটবল প্রদর্শন করে দ্বিতীয় রাউন্ডে এসেছে ক্রোয়াটরা। টানা তিন ম্যাচেই পেয়েছে জয়ের দেখা। গ্রুপ পর্বে নাইজেরিয়াকে ২-০ গোলে পরাস্ত করে যাত্রা শুরু তাদের। এরপর আর্জেন্টিনাকে ৩-০ গোলে উড়িয়ে নিজেদের শক্তির জানান দেয় তারা। শেষ ম্যাচে আইসল্যান্ডকে ২-১ গোলে পরাস্ত করে ‘ডি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হিসেবে উঠে আসে পরের রাউন্ডে। ক্রোয়েশিয়ার তারকা ফুটবলার ইভান রাকিটিচ বলেন, ‘ডেনমার্ক বেশ সংঘবদ্ধ দল। তারা জানে প্রতিপক্ষকে কীভাবে থামিয়ে দিতে হবে। প্রতিপক্ষকে তারা খুব কমই গোলের সুযোগ দিয়েছে। আক্রমণভাগেও তারা বেশ বিপজ্জনক দল। তাদের দলে আছে ক্রিস্টিয়ান এরিকসেন। এই মুহূর্তে ইউরোপ ও বিশ্বের অন্যতম সেরা প্লেমেকার সে। আমরা যদি প্রতিবছর বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ পেতাম তবে খেলোয়াড়রা মানসিকভাবেও শক্ত থাকত। তবে আমরা জয়ের জন্য প্রস্তুত।’

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads